লখনউ: প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর রোড শোকে ‘চোর শো’ বলে কটাক্ষ করলেন উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রী সিদ্ধার্থ নাথ সিং৷ তীব্র কটাক্ষের সুরে তিনি বলেন, ‘‘যারা দেশকে লুঠ করেছে তাদের দেখতে লখনউতে মানুষ জমায়েত হবেন৷’’ প্রিয়াঙ্কার রোড শোকে পাত্তা না দেওয়ার ঢঙে যোগী আদিত্যনাথ মন্ত্রিসভার মন্ত্রী বলেন, কংগ্রেস এই শোকে রোড শো বলছে৷ কিন্তু বিজেপির মতে, চোরেরা চিৎকার করছে৷ গান্ধী ও ভদরা পরিবার তো জামিনে আছে৷ তাদের রোড শোকে চোর শো বললে বেশি ভালো হবে৷ যারা দেশের ১২ লক্ষ কোটি টাকা চুরি করেছে তাদের দেখতে উত্তরপ্রদেশের বিশেষ করে লখনউয়ের মানুষ জমায়েত হয়েছে৷

সোমবার উত্তরপ্রদেশে রোড শোয়ের ডাক দিয়েছে কংগ্রেস৷ এই রোড শোয়ের মধ্যমণি পূর্ব উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী৷ লখনউ বিমানবন্দরে নামার পর সোজা শোভাযাত্রার উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েন তিনি৷ সঙ্গে রাহুল গান্ধী ও দলের আরও এক তরুণ তুর্কি জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া৷ জ্যোতিরাদিত্যকে পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে৷

এই তিন নেতা লখনউ বিমানবন্দরে এসে নামার পর তাঁদের স্বাগত জানানো হয়৷ সেখান থেকে শুরু হয়েছে শোভাযাত্রা৷ এই শোভাযাত্রা যাবে লখনউ শহরের কংগ্রেসের কার্যালয়ে। সেখানে সাংবাদিক সম্মেলন করবেন তিনি৷ প্রায় ৩০ কিলোমিটার জুড়ে সেই রোড শো হবে একেবারে রাজ সমারোহে। রোড শো শুরু হতেই কর্মীদের উদ্দেশে হাত নাড়তে শুরু করেন প্রিয়াঙ্কা৷ দু’পাশে প্রচুর মানুষ এসে জড়ো হয়েছেন৷ সেই ভিড় ঠেলে এগিয়ে চলেছে তাদের বাস৷ রোড শোয়ে কর্মীদের উচ্ছাস ও উদ্দীপান চোখে পড়ার মতো৷

সোমবার দুপুরে লখনউ পৌঁছনোর আগে প্রিয়াঙ্কা রবিবার কংগ্রেসের শক্তি অ্যাপের মাধ্যমে সমর্থকদের বলেন, আমি চাই আমাদের সবার অংশগ্রহণের মাধ্যমে রাজনীতিতে একটা পরিবর্তন আসুক। রাজনীতির পরিসর এমন হোক যেখানে সকলে নিজেকে তার অংশ ভাবতে পারে।