বেজিং: চিন যদি সত্যিই সিআইএ এজেন্টদের খুন করে থাকে, তাহলে এটা চিনের একটা বড়সড় জয়। এমনটাই দাবি করা হল চিনের এক সংবাদমাধ্যমে। নিউ ইয়র্ক টাইমসে ২০ জন সিআইএ অফিসারকে হত্যার খবর প্রকাশিত হতেই, এই প্রতিক্রিয়া দিল চিন।

চিনের প্রথম সারির সংবাদমাধ্যম ‘গ্লোবাল টাইমস’-এর একটি সম্পাদকীয়তে উল্লেখ করা হয়েছে যে , ‘যদি এটা সত্যি হয়ে থাকে, তাহলে এটা চিনের জয়।’ আরও বলা হয়েছে যে, ‘যদি মার্কিন সংবাদপত্রদের ওই খবর সত্যি হয়, তাহলে চিনের চর-দমন অভিযানের প্রশংসা করতে হবে। শুধু হত্যা করা হয়েছে তাই নয়, চিনে সিআইএ-র নেটওয়ার্ক নড়ে গিয়েছে। এটা চিনের কাছে একটা বড়সড় জয়। সিআইএ যদি আবার চিনে তাদের নেটওয়ার্ক ছড়াতে শুরু করে, তাহলে ফের একই ফলাফল হতে পারে।’

গুপ্তচরবৃত্তির ইতিহাসে এতবড় আঘাতের মুখোমুখি হয়নি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ৷ নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ২০১০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে চিন অন্তত ১৮-২০ জন সিআইএ এজেন্টকে খুন করা বা বন্দি করা হয়েছে। এক আমেরিকান একটি চিনা সরকারী কার্যালয়ের সামনেই গুলি করা হয়৷ সিআইএ এজেন্টরা যাতে চিনের ভিতর কাজ চালাতে আগ্রহ হারিয়ে ফেল তার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছে বেজিং৷ এর ফলে গত কয়েক বছর ধরেই, চিনে মার্কিন গোয়েন্দা কর্মসূচী কার্যত ভেঙে পড়েছে।

সিআইএ কর্তারা জানিয়েছেন, মার্কিন গোয়েন্দা নিরাপত্তা ব্যবস্থায় গত কয়েক দশকের মধ্যে এটি সবথেকে বড় সংকট৷ মার্কিন গোয়েন্দারা যে ধরণের যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করত তার কোড ওয়ার্ড ভেঙে পাল্টা আক্রমণ চালিয়েছে চিন৷ প্রশ্ন উঠেছে, সিআইএ এজেন্টদের মধ্যেই কি নিজেদের এজেন্ট ঢুকিয়ে রেখেছে চিন? নাহলে এত বড় মাপের আঘাত করা সম্ভব নয়৷

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব