নয়াদিল্লি: জেরা করে তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, প্রধানমন্ত্রীর দফতরের একাধিক গোপন তথ্য সংগ্রহ করার চেষ্টায় ছিল তাঁরা। দলাই লামা সম্পর্কে একাধিক তথ্য সংগ্রহ করছিল চিনের এই চর।

বৌদ্ধ ধর্মগুরু দলাই লামাকে ভারতে আশ্রয় দেওয়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই ক্ষুব্ধ চিন। ভারতে ধৃত চিনের চর কিন শিকে জেরা করে চাঞ্চল্যকর তথ্য হাতে এসেছে গোয়েন্দাদের। চিনের ব়্যাডারে রয়েছেন দলাই লামা। দলাই লামার গতিবিধির উপর নজর রাখছিল এই চর। বৌদ্ধ ধর্মগুরুর শরীরে অবস্থা কেমন, তিনি কোন হাসপাতালে চিকিৎসা করাচ্ছেন। কোন ডাক্তার তাঁর চিকিৎসা করছে। কোন ওষুধ তিনি খাচ্ছেন। কখন সেই ওষুধ খান। এই সব তথ্য সংগ্রহ করছিল চিনের চর। কখন তিনি হাসপাতালে চেকআপের জন্য যান সেই খবরও পায় চিন।

চিনের গুপ্তচর শি কলকাতায় এক মহিলার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল ২০১৯ সালে। শি তাঁকে একটি কাগজ দিয়েছিল ইংরেজি থেকে সেটি চিনা ভাষায অনুবাদ করে দিতে বলে। এই খবর জানার পরেই কলকাতায় সেই মহিলার সন্ধানে পৌঁছে গিয়েছেন গোয়েন্দাদের একটি দল। সেই মহিলার খোঁজ শুরু করেছে তারা।

শি শুধু দলাই লামা নয় প্রধানমন্ত্রীর দফতরের একাধিক গোপন তথ্য জানার চেষ্টা করে। সেখানকার উচ্চ পদস্থ আধিকারিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের একাধিক কাজের খোঁজ খবর নেওয়ার চেষ্টা করছিল বলে জানতে পেরেছেন তদন্তকারীরা। এমনকী আরও একাধিক সরকারি দফতরের গোপন তথ্য সংগ্রহের ছক কষছিল তাঁরা।

লাদাখ সংঘাতের পর থেকেই চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের অবনতি হয়েছে। গালওয়ান ভ্যালির সংঘর্ষের পর সেই সম্পর্ক একেবারে তলানিতে এসে ঠেকেছে। ভারতের সম্পর্কে একাধিক তথ্য জানতে সাংবাদিক রাজীব শর্মার সঙ্গে যোগাযোগ করে চিনের গুপ্তচর সংস্থা। এর আগে চিনের সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমসে একাধিকবার লেখালেখি করেছিলেন রাজীব শর্মা।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।