তাইপেই: শনিবার একেবারে তাইওয়ান সীমান্তের কাছে পৌঁছে গিয়েছিল চিনের ৮ টি বোমারু বিমান এবং ৪ টি যুদ্ধবিমান, তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এখবর জানিয়েছে। রয়টার্সের একটি রিপোর্ট মোতাবেক, তাইওয়ান জানিয়েছে, চিনা বিমানকে সতর্ক করা হয়েছে এবং পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, তাইওয়ানকে চিন তার নিজস্ব অংশ হিসেবে বলে বিবেচনা করে, যদিও চিনের এই সিদ্ধান্ত মানতে মোটেই রাজি না তাইওয়ান। ফলে গত কয়েক মাসে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে।

আরও পড়ুন – অসুররা ভগবান রামকে ভালোবাসতে পারেন না, মমতাকে আক্রমণ বিধায়কের

গত কয়েকমাসে প্রায় প্রতিদিনই চিন দক্ষিণ চিন সাগরে তাইওয়ান এবং প্যারাটাস দ্বীপের মধ্যে বিমান চালনা করছে। তবে বেশিরভাগ সময় একটি বা দুটি বিমান দেখা যায়। কিন্তু শনিবারে ১২ টি বিমান দেখা দেওয়ায় তাইওয়ান জানাচ্ছে, H6-K বোমারু বিমান এবং চারটি পারমাণবিক ক্ষমতা সহ যুদ্ধবিমান একসঙ্গে ওড়া অস্বাভাবিক।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়েছে, তাইওয়ানের বিমানবাহিনী চিনা বিমানকে সতর্ক করেছে। একই সঙ্গে তাইওয়ান বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাও সক্রিয় করেছে।

আরও পড়ুন – “সুভাষচন্দ্রকে কংগ্রেসরই হত্যা করেছে”, বিস্ফোরক বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ

মার্কিন বিদেশ মন্ত্রণালয়ও চিনকে তাইওয়ানের উপর চাপ বন্ধ করার আবেদন জানিয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, চিনকে ইওয়ানের উপর সামরিক, কূটনৈতিক, অর্থনৈতিক চাপ তৈরি বন্ধ করা উচিত এবং একে অপরের সাথে অর্থবহ সংলাপ শুরু করা উচিত।

মার্কিন মুলুক সাফ জানিয়েছে, তাঁরা তাইওয়ানের সঙ্গে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে যাতে সে নিজেকে রক্ষায় স্বাবলম্বী হতে পারে। একই সঙ্গে তাইওয়ানের বিদেশ মন্ত্রক আমেরিকার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জানিয়েছে, তাইওয়ান বাইডেন প্রশাসনের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.