লে: লাদাখ সীমান্তে সংঘাত এখনও জারি আছে। এবার গালওয়ান থেকে কিছুটা সরে গেল চিনের সেনা। সোমবার এমনই রিপোর্ট এসেছে। জানা গিয়েছে, গত ১৫ জুন যে জায়গায় সংঘাত হয়েছিল, সেখান থেকে অন্তত এক কিলোমিটার সরে গিয়েছে চিনের সেনা।

গালওয়ানে শিথিল হতে শুরু করেছে ভারত ও চিন সেনা সংঘর্ষ। শেষ ৪৮ ঘণ্টায় কূটনৈতিক, মিলিটারি এবং উচ্চপর্যায়ের টানা আলোচনার ভিত্তিতেই তা সম্ভব হয়েছে বলেই।

সীমান্ত সংঘর্ষের পরে কিছুদিন আগেই লাদাখের নিমু সফর করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সীমান্তে দাঁড়িয়ে চিনের নাম না করেই পড়শি দেশকে চরম হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। তাঁর এই সফরে তাঁর সঙ্গে ছিলেন চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও সেনাপ্রধান জেনারেল এম এম নারাভানে। ভারতীয় সেনাদের জন্য উন্নত প্রযুক্তির অস্ত্র আমদানি করা হচ্ছে বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী লেহ ও লাদাখ পরিদর্শনে যান। সেখানে গিয়ে সেনাবাহিনী ও ইন্দো-তিব্বত বর্ডার পুলিশের জওয়ানদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। তাঁদের মনোবল বাড়ান। দেশের জন্য যে ২০ জওয়ান শহিদ হয়েছেন তাঁদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন তিনি।

ইন্দো-চিন সীমান্ত সম্পর্কের ইতিহাসে ৪৫ বছর পরে এমন রক্তক্ষয় হয়নি সীমান্তে। চিনের সঙ্গে কোনভাবেই সমঝোতায় পৌঁছনো সম্ভব হয়নি। পূর্ব লাদাখে ২০ জন ভারতীয় সেনা শহিদ হয়েছেন তাই ভারত-চিন সীমান্ত সমস্যার সমাধান করতে কড়া প্রত্যাঘাত ফিরিয়ে দিতে উদ্যোগী ভারত। তাই অবৈধভাবে যারা ভারতীয় ভূখন্ড দখল করছে তাঁদের জন্য কঠোর বাণিজ্যিক বিধিনিষেধ আনতে চলেছে নরেন্দ্র মোদী সরকার।

চিন ক্রমশ নিজের শক্তি প্রদর্শন করতে ভেতরের দিকে ঘাঁটি তৈরি করতে শুরু করেছে। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ফিংগার-৪-এর ভেতরে স্থায়ীভাবে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে চিন। ভারতকে চাপে রাখতে এক-এক ধাপ এগিয়ে আসছে চিন। দু-তিন কিলোমিটার রাস্তা পিছু হটা নিয়ে বিবাদ, ভারত-চিন মিলিটারি স্তরের আলোচনায় যা ইতিমধ্যেই পরিষ্কার হয়েছে।

চিনের সঙ্গে আলোচনা ঠিক কতটা ফলপ্রসু হয়েছে তা নিয়েও কথা বলেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। অঘোষিত এই সফরে প্রধানমন্ত্রী পৌঁছে গিয়েছেন লাদাখের নিমু অঞ্চলে। সেখানে ভারতীয় সেনা, ভারতীয় নৌসেনা এবং ইন্দো-তিব্বত পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি। তাঁদের মনের জোর বাড়াতেই এমন সফরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোদী।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ