বেজিংঃ  বাণিজ্য যুদ্ধ সহ একাধিক ইস্যুতে আমেরিকার সঙ্গে চিনের সম্পর্ক ক্রমশ তলানিতে এসে ঠেকেছে। এই অবস্থায় যখন দু’দেশের সম্পর্ক ক্রমশ অবনতির পথে সেই সমত আরও বড় পদক্ষেপ নিল কমিউনিস্ট বেজিং। চিনের নাগরিকদের সে দেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে চরম সতর্কতা জারি করল জি জিংপিং সরকার। এই বিষয়ে নাগরিকদের সতর্ক করে একটি বিজ্ঞপ্তিও দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রত্যেকদিনই আমেরিকার মাটিতে বন্দুরবাজের হামলার ঘটনা ঘটছে। তাতে প্রাণহানির মতো ঘটনাও ঘটছে। আর তাতে উদ্বিগ্ন চিনের সরকার। আর সে কারণেই আমেরিকায় চিনা নাগরিকদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

একই সঙ্গে চিনের সংস্কৃতি এবং পর্যটনদফতরের তরফে দেওয়া বিজ্ঞপ্তিতে মারাত্মক অভিযোগ করা হয়েছে মার্কিন পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে। মার্কিন পুলিশ প্রশাসন জিজ্ঞাসাবাদের নামে চিনের নাগরিকদের নানাভাবে ‘হয়রানি’ করছে। সেখানে কর্মক্ষেত্রে যাওয়া নাগরিকদের বাড়িতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে বলেও মারাত্মক অভিযোগ কমিনিউনিস্ট সরকারের। কূটনৈতিক জায়গা থেকে মার্কিন প্রশাসনকে সতর্কও করে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত মে মাসে চিনের একাধিক পণ্যের ওপর একের পর এক শুল্ক বৃদ্ধি করে আমেরিকা। মার্কিন প্রেসিডেন্টের এহেন সিদ্ধান্তে চরম ক্ষুব্ধ বেজিং। শুধু তাই নয়, চিনের বিখ্যাত প্রযুক্তি সংস্থা হুয়াইকে ব্ল্যাক লিস্টে ফেলে চিন এবং আমেরিকার মধ্যে চলা উত্তেজনাকে আরও দ্বিগুণ করা হয়েছে। গত বছর চিন এবং আমেরিকা দু’দেশই একে অপরের পণ্যে কয়েক বিলিয়ন ডলারের শুল্ক আরোপ করেছে। দু’দেশের এই সিদ্ধান্তে বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতির মুখে পড়েছে।

এদিকে চিনের বিদেশ দফতরের মুখপাত্র গেং শুয়াং এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, যেভাবে আমেরিকার মাটিতে একের পর এক বন্দুকবাজের হামলা ঘটছে তাতে চিন সরকার উদ্বিগ্ন। বিশেষ করে যেভাবে আমেরিকায় থাকা চিনের নাগরিকদের হেনস্তা করা হচ্ছে তাতে মোটেই জি জিংপিং সরকার ভালো চোখে দেখছে না। আর এই বর্তমান পরিস্থিতিতে এই সতর্কতা ‘দরকার ছিল’ বলে মন্তব্য করেছেন শুয়াং। তাঁর দাবি, কিছু দিন ধরে মার্কিন তদন্তকারী সংস্থাগুলি চিনের নাগরিকদের সেদেশে প্রবেশ বা সেখান থেকে চলে আসার সময় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও আমেরিকার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দাবি চিনের।