চেন্নাই: ইণ্ডিয়ান ওশেন রিজিয়ন বা আইওআরে ভারতীয় নৌসেনার গতিবিধির ওপর কড়া নজর রাখছে একটি চিনা জাহাজ৷ আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের চারপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে চিনা নজরদারি জাহাজটি৷ ভারতীয় গোয়েন্দা দফতর সূত্রে মিলল এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য৷ ভারতের নৌসেনার গতিবিধির ওপর নজরদারি করার উদ্যেশ্যেই চিনা জাহাজের এই অবস্থান বলে খবর৷

গোয়েন্দা সূত্র জানাচ্ছে নৌসেনার গতিবিধি ও কার্যকলাপের খুঁটিনাটির ওপর নজরদারি চালাতে শুরু করেছে চিন৷ জি নিউজে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী চিনা এই জাহাজটি ডংডিয়াও ক্লাসের, যা মূলত তথ্য সংগ্রহ করার কাজেই ব্যবহার করা হয়৷ বেশ কয়েকদিন ধরেই আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের কাছে এই জাহাজটির গতিবিধি লক্ষ্য করেছে ভারতীয় নৌসেনা৷

আরও পড়ুন : মোটা টাকা নিয়ে পাকিস্তানের চরবৃত্তি করছে বিজেপি : দিগ্বিজয় সিং

ভারতীয় নৌসেনার যুদ্ধজাহাজ ও নৌঘাঁটিগুলির কার্যকলাপ খুব কাছ থেকে দেখার জন্য ও প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করার জন্যই চিনা জাহাজটিকে মোতায়েন করা হয়েছে বলে খবর৷ চিনা জাহাজটির নাম Tianwangxing৷

ইতিমধ্যেই ইণ্ডিয়ান এক্সক্লুসিভ ইকনমিক জোন বা ইইজেডে প্রবেশ করেছে চিনা জাহাজটি৷ প্রায় দু সপ্তাহ ঘাঁটি গেড়েও ছিল বলে গোয়েন্দা সূত্রে খবর৷ এমনকী ভারতের পূর্বের আন্তর্জাতিক জলসীমানার খুব কাছেই এটিকে ঘোরাফেরা করতে দেখা গিয়েছে৷ ভারতের সীমান্ত নিরাপত্তার মানচিত্রে আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ যথেষ্ট স্পর্শকাতর স্থানে রয়েছে৷ ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি আন্দামান নিকোবরের রাজধানী পোর্ট ব্লেয়ার৷ ফলে কড়া নিরাপত্তার চাদরে মোড়া থাকলেও চিনা জাহাজের নজরদারি নিয়ে কিছুটা হলেও উদ্বেগে ভারত৷

তবে বিষয়টি নিয়ে সতর্ক নয়াদিল্লি৷ ইতিমধ্যেই ইণ্ডিয়ান সিকিওরিটি এশটাব্লিশমেন্টের পক্ষ থেকে এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক জানান, চিনা জাহাজের ঘোরাফেরার বিষয়টি নজরে এসেছে, দু সপ্তাহ ধরে সেটি ঘোরাফেরা করেছে৷ এই তথ্য ভারতীয় নৌ বাহিনীর কাছে ছিল৷ তারা যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করেছে এই বিষয়ে৷

আরও পড়ুন : গলা ছেড়ে পাকিস্তানের নেতা গাইলেন, ‘সারে জাহা সে আচ্ছা, হিন্দুস্তান হামারা’

গোয়েন্দারা জানার চেষ্টা করছেন, ঠিক কোন ধরণের তথ্য চিনা নজরদারি জাহাজটি যোগাড় করেছে৷ কোনও ভাবে তা ভারতের নিরাপত্তার পক্ষে বিপজ্জনক কীনা তাও জানার চেষ্টা চলছে৷ বেজিং গোটা বিষয়টির পিছনে রয়েছে বলে মনে করছে নয়াদিল্লি৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত গুটিকয়েক দেশেই রয়েছে এই ধরণের তথ্য সংগ্রহকারী জাহাজ৷ চিনের হাতেও সেই জাহাজ রয়েছে৷ যে কোনও পরিস্থিতি ও আবহাওয়ায় সমানভাবে কাজ করে যেতে পারে এই জাহাজ৷ এতে রয়েছে অত্যাধুনিক সরঞ্জাম, যা বহু দূর থেকেও কোনও নির্দিষ্ট লক্ষ্যের সম্পর্কে তথ্য দিতে সক্ষম৷ এছাড়াও ব্যালেস্টিক মিসাইলের গতিবিধি ট্র্যাক করার ক্ষমতা রয়েছে এই জাহাজের৷ রয়েছে স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন সিস্টেম৷