বেজিং: চিনের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র গেং শুয়াং শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলনে আমেরিকার নাম না করে জানান, ‘রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে গ্লোবাল টেররিস্ট হিসাবে কাউকে অভিহিত করার ব্যাপারে বাধা দেওয়া হয়েছিল, শুধু এই কারণে একটি বিশেষ দেশ চিনকে যদি দোষারোপ করে, তাহলে তো প্রশ্ন করতে হয়, যে যে দেশ আজ পর্যন্ত এই বাধা দিয়েছে তারা প্রত্যেকেই জঙ্গিদের প্রশ্রয় দেয় কি না? ‘

চিনের দাবি, ‘সেক্ষেত্রে যে দেশটি সবথেকে বেশিবার এমন বাধা দিয়েছে, তারাই আসলে সবথেকে বেশি সন্ত্রাসবাদীদের মদত দেয়?’

মাসুদ আজহারকে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করার ক্ষেত্রে বারবারই বাধা দিয়েছে চিন। আর সেই ইস্যুতেই এবার একহাত চিন আমেরিকা।

আমেরিকার সেক্রেটারি অব স্টেট মাইক পম্পিও চিনকে মুসলমানদের প্রতি ‘ন্যক্কারজনক দ্বিচারিতা’ দেখানোর জন্য রীতিমত একহাত নেন। তিনি বলেন, চিনের দ্বিচারিতা অত্যন্ত বিরক্তিকর। নিজেদের দেশেই চিন কয়েকলক্ষ মুসলমানের ওপর রীতিমত অত্যাচার চালিয়ে যায়। অথচ, রাষ্ট্রপুঞ্জ যখন ইসলামকি সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলিকে নিষিদ্ধ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়, তখনই সেখানে সমস্যার সৃষ্টি করে একমাত্র চিন।

ছুদিন আগেই, মাসুদ আজহারকে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদ ‘গ্লোবাল টেররিস্ট’ হিসেবে ঘোষণা করতে গেলে সেখানে বাধা দিয়েছিল চিন। সেদিকে ইঙ্গিত করেই কথাটি বলেন পম্পেও। এরপর রাষ্ট্রসংঘে মাসুদ আজহারকে কালো তালিকাভুক্ত করার আবেদন জানিয়ে একটি খসড়া দেয় আমেরিকা।