নয়াদিল্লি: বাণিজ্যিক ঘাটতি মেটাতে স্থানীয় মুদ্রায় ব্যবসা করার প্রস্তাব দিয়েছিল ভারত। মোদী সরকারের সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিল চিন। চিনের মুদ্রা রেনমিনবি ও ভারতীয় মুদ্রায় ব্যবসা করতে নারাজ বেজিং।

ভারত থেকে চিনের রফতানির মূল্য দাঁড়িয়েছে মাত্র ১৩.৪ বিলিয়ন আর আমদানি হয়েছে ৭৬.৪ বিলিয়ন ডলারের। ফলে ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে বাণিজ্যিক ঘাটতি তেরি হয়েছে ৬৩ বিলিয়ন ডলারের। এই ঘাটতির পর গত অর্থবর্ষে ছিল ৫১.১১ বিলিয়ন ডলার। এই ঘাটতি মেটাতেই ভারত স্থানীয় মুদ্রায় ব্যবসার প্রস্তাব দিয়েছিল। সেই প্রস্তাব চিন গ্রহণ করেনি বলে জানিয়েছে কেন্দ্র।

অক্টোবর এই বিষয়ে আলোচনা হয়। তখনই রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া ও ডিপার্টমেন্ট অফ ইকনমিক অ্যাফেয়ার্সকে বলা হয় যাতে চিনের সঙ্গে রেনমিনবি ও টাকায় বাণিজ্য চালানো সম্ভব হয়।

শুধু চিন নয়, রাশিয়া, ইরান ও ভেনেজুয়েলাকেও একই প্রস্তাব দিয়েছিল ভারত। এই তিন দেশের সঙ্গেও ভারতের বাণিজ্যিক ঘাটতি রয়েছে। Federation of Indian Export Organisations-এর প্রেসিডেন্ট গণেশ কুমার গুপ্তা জানিয়েছেন, ভারত থেকে দেশীয় মুদ্রায় রফতানি করা উচিৎ। তাতে বাণিজ্যিক ঘাটতি পূরণ হওয়া সম্ভব।

বিভিন্ন রফতানিকারী সংস্থা একাধিকবার সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে যাতে চিনের বাজারে আরও বেশি পণ্য রফতানি করা যায়। সম্প্রতি চিন চাল ও চিনি রফতানির অনুমতি দিয়েছে ভারতকে। তবে, ওষুধ সহ আরও একাধিক জিনিস চিনে রফতানি করতে আগ্রহী ভারত।