কলকাতা: ভারতের ৫৯টি চিনা অ্যাপ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। একাধিক জনপ্রিয় অ্যাপ ছিল সেই তালিকায়। তবে ভারতে চিনা দ্রব্যের অভাব নেই। মোবাইল থেকে আলো, সব ক্ষেত্রেই বাজার ভরে রয়েছে চিনা সংস্থার দ্রব্য। এর মধ্যে রয়েছে বেশ কিছু জনপ্রিয় মোবাইল।

এগুলিও বাজারে বহুল পরিমাণে বিক্রি হয়েছে। এখনও অনেকেই এই সব মোবাইল ব্যবহার করেন। তবে অনেকের মধ্যেই আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, যে মোবাইলগুলিও হয়ত এবার বন্ধ হয়ে যাবে। নিষিদ্ধ হয়ে যাবে চিনা মোবাইল।

নোকিয়া, আইফোন কিংবা স্যামসাং-এর তুলনায় চিনা সংস্থাগুলি কম দামে ফোন বিক্রি করে। এছাড়া এতে ফিচারও অনেক বেশি থাকে। ফলে অনেকেই এই ফোন কিনতে পছন্দ করেন।

তবে এখনও পর্যন্ত মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ করার বিষয়ে কোনও বার্তা দেওয়া হয়নি। তাই এখনই এই বিষয়ে চিন্তাভাবনার কিছু নেই। তবে অ্যাপ ব্যান হওয়ায় স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে কিছু প্রভাব পড়েছে।

কারণ, এইসব ফোনে অনেক সময় আগে থেকে কিছু অ্যাপ ইনস্টল করা থাকে। এর মধ্যে যেগুলি ব্যান হয়ে গিয়েছে, সেগুলি ওইসব ফোন থেকে এবার সরিয়ে নিতে হবে।

যেসব ফোনগুলি ভারতের বাজারে বহুল প্রচলিত, সেরকম ১১ টি ফোনের তালিকা দেওয়া হল:

OnePlus Mobiles
Xiaomi / Mi
Lenovo
Oppo smartphones
Vivo
Realme
Huawei
Coolpad
Gionee smartphones
Zopo
ZTE

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।