বেজিং: শনিবার বেজিংয়ে জিনফাডি পাইকারি বাজার খুলে গেল। ওই বাজার গত প্রায় দুমাস বন্ধ ছিল করোনার জন্য। এই ১১২ হেক্টর জায়গা জুড়ে থাকা বাজারটিতে ১০০০ বেশি ট্রাক ঢুকেছে। শুধু তাই নয়, ১৩,০০০ টন ফল আনাজ তরিতরকারি নিয়ে সেই ট্রাকগুলি বিশাল এই পাইকারি বাজারে এসেছে। এর ফলে ৬০ শতাংশ স্বাভাবিক লেনদেন চালু করা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এই বাজারটি অবস্থিত ফেঙ্গটাই জেলায়।

সেখানকার এক্সিকিউটিভ ডেপুটি হেড জোউ জিনচুন জানিয়েছেন, এই বাজার চালু হলেও পুরোদমে ১০ সেপ্টেম্বর থেকে চালু হয়ে যাবে। ১৩ জুন থেকে এই বাজার বন্ধ হওয়ার আগে জিনফাডি সরবরাহ করে থাকত বেজিংয়ের ৭০ শতাংশ তরিতরকারি আনাজ,১০ শতাংশ শুয়োরের মাংস, ৩ শতাংশ গোমাংস এবং পাঠা। নির্দেশিকাতে বলা হয়েছে এই বাজার খুললেও এখানে খুচরো ব্যবসা বন্ধ থাকবে।

শুধু তাই নয়, ব্যক্তিগত ভাবে উপভোক্তাদের প্রবেশ নিষেধ রাখা হচ্ছে। এই বাজারে ক্রেতা বিক্রেতাদের প্রবেশের আগে তাদের প্রকৃত নাম লিখিয়ে অনুমতি নিয়ে নিতে হবে। তবে স্থানীয় মানুষের চাহিদার কথা মাথায় রেখে এই পাইকারি বাজারের বাইরে ১০০০ বর্গমিটার এলাকা জুড়ে খুচরো আনাজ তরিতরকারি বাজার তৈরি করা হয়েছে। গত ১১ জুন বেজিং জানায় যে ৩৩৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। যাদের সঙ্গে এই জিনফাডি পাইকারি বাজারের যোগসূত্র ছিল বলে দাবি করেন বেজিংয়ের বিশেষজ্ঞরা।

এরপরেই বিশাল এই বাজার বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ৬ আগস্ট সেরে ওঠার পর সমস্ত রোগীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এই বাজার থেকে নতুন করে আর কারোর মধ্যে সংক্রমণ ঘটেনি। আর সেই কারণেই বাজারের একটা অংশ খুলে দেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে, একবার করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষেরা আবার আক্রান্ত হচ্ছে করোনায়। চিনে এমন দুজন রোগীর হদিশ মিলেছে যারা কিনা কয়েকমাস আগে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও, ফের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরফলে করোনাভাইরাসের রোগীদের দেহে এই ভাইরাস পুনরায় দেখা দেওয়ার ক্ষমতা ও সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে।

চিনার হুবেই প্রদেশে রবিবার করোনা আক্রান্ত হন এক মহিলা, এরপরেই জানা যায় এর প্রায় ৬ মাসে আগে আরও একবার করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। এছাড়াও সোমবার অপর এক ব্যক্তির দেহে উপসর্গহীন করোনার ভাইরাস মিলেছে। তিনিও এর আগে এপ্রিলে করোনার কবলে পড়েছিলেন।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ওই দুজনের কাছাকাছি আসা কারোরই কোভিড-১৯ ধরা পড়েনি। তবুও তাঁদেরকে আপাতত কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। অন্যদিকে, গোটা বিশ্ব জুড়ে এখন করোনা অতি মহামারি আকার ধারণ করেছে।

করোনার সংক্রমণ আটকাতে লকডাউনের পথে যেতে হয়েছে বিভিন্ন দেশকে। তবে গোটা বিশ্বে করোনা ছড়ানোর জন্য আমেরিকাসহ বেশ কিছু দেশ চিনকে দায়ী করে সে দেশের দিকে আঙ্গুল তুলেছে। এদিকে সম্প্রতি রাশিয়া করোনা প্রতিষেধক টিকা আবিষ্কার করেছে বলে দাবি করছে। যদিও সে টিকার কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিভিন্ন দেশ।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।