বেজিং: করোনা রুখতে সচেষ্ট সারা পৃথিবী। করোনার বিরুদ্ধে ময়দানে নেমে পড়েছে আমেরিকা, রাশিয়ার মতো তাবড় শক্তিগুলি। তবে পিছিয়ে নেই এশিয়াও। সর্ববৃহৎ মহাদেশের অতীব শক্তিশালী রাষ্ট্র চিনেই যেহেতু মারণ করোনা প্রথম আঘাত হেনেছিল, তাই সেই করোনাকে রুখে দিতে বেশ কয়েকধাপ এগিয়েছে এই লাল দেশ। বিশ্বের অন্য সব দেশ যখন কীটনাশক, স্প্রে ইত্যাদি নিয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছে, তখন রোবট দিয়ে এই মারণ ভাইরাসকে নষ্ট করতে বদ্ধ পরিকর চিন।

চিনে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কমাতে ব্যবহার করা হচ্ছে একটি রোবট। যেটি আসলে একটি ইউভিডি রোবট। ব্লু ওশান রোবোটিক্স নামে একটি কোম্পানি এই রোবটের প্রস্তুতকারক। জানা গিয়েছে, একাধিক ভাইরাসকে বিনষ্ট করতে এই ভাইরাসের জুড়ি মেলা ভার। তবে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে অবশ্য সফল ভাবে এই ভাইরাসকে তেমন ব্যবহার করা হয়নি। এই রোবট মারণ করোনা ভাইরাসকে নষ্ট করতে পারে কিনা, তা নিয়ে এখনও পরীক্ষা চলছে।

জানা গিয়েছে, চিনের বেশ কয়েকটি হাসপাতালে কাজ করা শুরু করেছে এই বিশেষ ইউভিডি রোবট। শুধু তাই নয়, এই রোবট কোম্পনির ভাইস প্রেসিডেন্ট সাইমন এলিসন দাবি করেন, এশিয়ার বিভিন্ন দেশেও পৌছে দেওয়া হয়েছে এই রোবটকে। এমনকি তিনি জানিয়েছেন, করোনায় প্রায় ভেঙে পড়া ইতালি থেকেও এই রোবটের প্রতি আগ্রহ দেখানো হয়েছে।

প্রকৃতপক্ষে এই রোবটটি আসলে একটি লাইট রোবট। জীবাণুনাশক আলোকরশ্মির সাহায্যে এই রোবট ভাইরাসকে নষ্ট করে। এই রোবটের দাম ৬৭ হাজার মার্কিন ডলার। বিজ্ঞানীরা আশা করছেন, করোনা ভাইরাস রোধের ক্ষেত্রে সক্রিয় ভূমিকা নেবে এই রোবট।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।