বেজিং: সারা বিশ্বের ধারণা চিনের উহান শহর মারণ ভাইরাস করোনার কেন্দ্রবিন্দু। চিন সেকথা বারেবারে অস্বীকার করলেও উহানেই যে প্রথম করোনা আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল, সেকথা অস্বীকার করার উপায় নেই। তবে এরই মধ্যে ছন্দে ফিরেছে চিন। দেশের অধিকাংশ জায়গায় লকডাউন তুলে নেওয়ার পর এবার উহান থেকেও পুরোপুরি লকডাউন তুলে নিচ্ছে বেজিং।

বুধবার থেকে উহানে উঠছে এই লকডাউন। গত ২৩ জানুয়ারি মারণ করোনার বিস্তার ঠেকাতে হুবেই প্রদেশের রাজধানী এই উহান শহর পুরোপুরি লকডাউন করে দেয় চিনা সরকার। সেই হিসেবে প্রায় ৭৬ দিন পর লকডাউন মুক্ত হচ্ছে উহান।

জানা গিয়েছে লকডাউন ওঠার পরেই রাস্তায় বেরিয়ে পড়েছে প্রচুর মানুষ। কয়েক লাখ মানুষের ভিড় হয়েছে বাস ও রেল স্টেশন ও বিমান বন্দরগুলিতে। মূলত যারা এতদিন উহানে এসে আটকে পড়েছিলেন তারাই প্রথম অবস্থাতেই নিজেদের জায়গায় ফিরতে চাইছেন।

তবে লকডাউন তোলা হলেও সমস্ত রকম বিধিনিষেধ এখনও এই শহরের থেকে তোলেনি বেজিং। শহর ছাড়তে এখনও কিউআর কোড প্রদর্শন করতে হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। হুবেই প্রদেশের স্থানীয় সরকারের পক্ষ থেকে আগেই একটি কিউআর কোড দেওয়া হয়েছিল শহরের লোকেদের। ওই কোডটি স্ক্যান করে ভ্রমণকারীর স্বাস্থ্য সংক্রান্ত তথ্য জানতে পারবেন টহলরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা। এছাড়া উহান থেকে সরাসরি যারা রাজধানী বেজিংয়ে যাচ্ছেন, তাদেরকে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেনটাইনে থাকতে হবে বলে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ডিসেম্বরের একদম শেষ থেকে চিনে শুরু হয়েছিল করোনা সংক্রমণ। এরপরেই ২৩ জানুয়ারি কড়া সিদ্ধান্ত নেয় বেজিং। লকডাউন করে দেওয়া হয় শহরটিকে। এরফলে উহানের ১ কোটি ১০ লাখ নাগরিক সম্পুর্ণ রূপে আটকে পড়ে।

তবে মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে সংক্রমণের সংখ্যা অনেকটাই কমে আসে। ২৪ মার্চ এক সপ্তাহ ধরে উহানে নতুন কোন আক্রান্তের ঘটনা না ঘটায় শর্তসাপেক্ষে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে শহর কর্তৃপক্ষ। এর ১১ দিন পর এবার লকডাউন পুরোপুরি প্রত্যাহার করা হল।

উল্লেখ্য এই মারণ ভাইরাসের জের চিনে এখন প্রায় নেই। করোনা থেকে চিন মুক্তির রাস্তা পেলেও বাকি পৃথিবী এখনও ভয়াবহ অন্ধকারেই রয়েছে। চিনে যেখানে মৃত্যু হয়েছে ৩,৩৩৩ জনের। বাকি পৃথিবীর চিত্রটা একবারে আলাদা। মার্কিন মুলুকে কমপক্ষে ১২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে করোনায়। ইতালিতে ১৭ হাজার ও স্পেনে সংখ্যাটা দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার। তবে এইসব দেশেই আরও মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও