ইসলামাবাদ:  পাকিস্তানের মাটিতে ক্রমশ বিনিয়োগ বাড়াচ্ছে চিন। করাচি বন্দরকে ঢেলে সাজানোর পর একের পর এক বিনিয়োগ করেই চলেছে লালচিন। যা মোটেই ভালো চোখে দেখছে না ভারত। আর সেখানে দাঁড়িয়ে নতুন করে পাকিস্তানের একটি বিদ্যুৎ প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে চলেছে চিন।

জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের নন্দীপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পের মান উন্নয়নে একটি চিনা কোম্পানির সঙ্গে দশ বছরের চুক্তি করেছে পাকিস্তান সরকার। চিনা কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার খবর জানিয়ে ইতিমধ্যে বিবৃতি প্রকাশ করেছে পাকিস্তানের জল ও বিদ্যুৎ মন্ত্রক।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ৪২৫ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্রটির দীর্ঘমেয়াদী পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য চিনা হাইড্রো ইলেক্ট্রিক পাওয়ার সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির সঙ্গে পাকিস্তানের নর্দার্ন পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেডের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই চুক্তির মেয়াদ দশ বছর।  তবে চুক্তির মূল্য কত তা প্রকাশ করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক আরও গভীর করতে উদ্যোগ নিচ্ছে চিন। ৫৭ বিলিয়ন ডলারের নয়া ট্রেড রুটের চুক্তির পর সম্পর্ক আরও গভীর হচ্ছে।

পাকিস্তানের শিল্পপতিরা ‘রয়টার্স’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানিয়ছেন, চিন মূলত পাকিস্তানের সিমেন্ট, স্টিল ও বস্ত্রশিল্প নজরে রেখেছে। আর এগুলোই পাকিস্তানের ২৭০ বিলিয়ন ডলারের অর্থনীতির ‘ব্যাকবোন’। অর্থনীতিবিদদের মতে, বেজিং-এর ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ প্রজেক্টের একটি বড় অংশ হল পাকিস্তান। আর এই ট্রেড রুটে বিভিন্ন দেশে বাণিজ্যের বিস্তার করবে চিন। উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই পাইস্তানের শেয়ার বাজারেও কৌশলে ঢুকে পড়েছে চিন।