ইসলামাবাদ: পাকিস্তান আর চিনের মধ্যে যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক রয়েছে, সেকথা কারোরই অজানা না। তবে এরই মধ্যে চিন প্রায়ই যথেষ্ট বেকায়দায় ফেলে দেয় পাকিস্তানকে। হতে পারে, যে নিজেদের ক্ষমতার বহর বোঝাতেই এমন করে চিন। এবার পাকিস্তানকে বড় ধাক্কা দিয়ে চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিসি) প্রকল্প বন্ধ করে দিল লাল চিন।

বর্তমানে একদিকে যখন পাকিস্তান করোনা মোকাবিলায় ব্যস্ত, অন্যদিকে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার অভাবেও ভুগছে পাকিস্তান। এই সময় চিনের এই পদক্ষেপকে বিশেষজ্ঞরা মনে করছে কূটনৈতিক চাল। যাতে পাকিস্তান উচ্চ সুদের হারে লোন নিতে বাধ্য হয়, তাই চাইছে বেজিং।

এশিয়া টাইমসের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, CPEC প্রোজেক্ট বন্ধ হওয়ার দরুণ পাকিস্তান সমস্যায় পড়তে পারে। ইতিমধ্যে এই প্রকল্পের অনেকগুলি কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে আবার ২০১৮ সালে ইমরান সরকার কর্তৃক কিছু কাজও বন্ধ করা হয়। এক্ষেত্রে পূর্ববর্তী সরকারের ওপর দুর্নীতির অভিযোগ ছিল।

সম্প্রতি এই প্রজেক্টের জন্য মোট বিনিয়োগের একটি অংশ চিনের থেকে লোন নেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল পাকিস্তান। এমতাবস্থায় চিন এমন পরিকল্পনা করছে, যাতে পাকিস্তান উচ্চ সুদের হারে লোন নিতে বাধ্য হয়।

এরই মধ্যে সিপিইসি কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল অসীম সেলিমের নামও দুর্নীতির কবলে পড়ে। এর ফলে কিছুটা ধাক্কা খায় চিনও।

অন্যদিকে, পাকিস্তানেও বর্তমে রাজনৈতিক অস্থিরতা রয়েছে। বিরোধী দলগুলি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। বিরোধী জোট ঘোষণা করেছে, সরকারের নিষেধাজ্ঞার পরেও তারা ২২ নভেম্বর পেশোয়ারে একটি মেগা সমাবেশ করবে। উল্লেখ্য, ইমরান সরকারের বিরুদ্ধে পাকিস্তানে জোট করেছে বিরোধীরা। ১১ টি বিরোধী দল পাকিস্তান ডেমোক্রেটিভ মুভমেন্ট নামে একটি জোটে আবদ্ধ হয়েছে।

এছাড়া করোনার জেরেও হাল খারাপ পাকিস্তানের। বিশ্বব্যাপী যে অর্থনৈতিক প্রভাব পড়ে, তা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করছে পাকিস্তান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I