নয়াদিল্লি : পাকিস্তানের গোয়াদার বন্দরে পরিকাঠামোগত উন্নয়নের কাজ ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছে চিন৷ বন্দরে তারা নিউক্লিয়ার সাবমেরিন স্টেশন তৈরি করছে৷

গদর বন্দর পাকিস্তানের এক গুরুত্বপূর্ণ বন্দর৷ চিন এই বন্দরে দরকারি উন্নয়ন শুরু করেছে৷ ভারত মহাসাগর দিয়ে চিনের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রক্ষা করবে এই বন্দর৷ এমন হলে চিন-পাকিস্তান যোগাযোগের পথ হবে ভারত ঘিরে৷ সেক্ষেত্রে ভারতীয় নেভির অপারেশন ও প্রভাব সম্পর্কে অবগত হতে পারবে চিন৷

নিউক্লিয়ার সাবমেরিন শুধুমাত্র নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর ক্ষমতা থাকবে, তাই নয়৷ এক্ষেত্রে সেই সাবমেরিনকে নিউক্লিয়ার অস্ত্রও বইতে হবে না৷ দরকার পড়লে সমুদ্রে অতিরিক্ত সময়ের জন্যও থাকতে পারবে নিউক্লিয়ার সাবমেরিন৷ এর জন্য কোথাও ল্যান্ড করা বা জ্বালানি নেওয়ার প্রয়োজন নেই৷

সম্প্রতি চিনের উচ্চ পদস্থ কর্তারা ইসলামাবাদ সফরে এসেছিলেন৷ পাকিস্তানি নৌসেনার সঙ্গেও তাদের কথা হয়৷ দক্ষিণ পাকিস্তান উপকূলের এই প্রজেক্ট নিয়ে চিন যথেষ্ট উত্সাহী৷ শোনা যাচ্ছিল, ইরানের কাছাকাছি জিওয়ানি বন্দরে এই সেট আপ তৈরি করছে চিন৷ গোয়াদার থাকবে শুধু বাণিজ্যিক বন্দর হিসেবে৷ কিন্তু বেজিং একথা অস্বীকার করেছে৷

সাবমেরিন কমিউনিকেশনের জন্য VLF স্টেশন তৈরি করছে পাকিস্তান নেভি৷ গভীর সমুদ্রে সাবমেরিনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করতে পারে এই VLF বা ভেরি লো ফ্রিকোয়েন্সি৷ পাকিস্তান নেভির সঙ্গে এই নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে চিন৷ বসে গিয়েছে ২০৫ ফিট অ্যান্টেনা টাওয়ার৷ আন্ডারগ্রাউন্ড VLF বিল্ডিং ও পাওয়ার স্টেশনের কাজও চলছে৷

ভারতীয় নৌসেনা ইতিমধ্যেই জানিয়েছে, ভারতীয় উপকূলের কাছাকাছি চিনের সাবমেরিন দেখা গিয়েছে৷ সম্প্রতি আফ্রিকা উপকূলের মিলিটারি বেস দিজেবৌতিতে হামলা চালিয়েছে চিন৷ ভারতের উপকূলে হামলার আশঙ্কাও তাই উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ