নয়াদিল্লি : করোনার সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে ভারতে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে নিজেদের সব নাগরিককে ফেরত যাওয়ার নির্দেশ দিল বেজিং। চিনা পড়ুয়া, পর্যটক ও অস্থায়ী ভাবে ভারতে আসা শিল্পপতি বা শিল্পোদ্যোগীদের ফেরানোর ব্যবস্থা করছে চিন। চিনা দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এই মুহূর্তে ভারতে থাকা যে সব চিনা নাগরিক দেশে ফিরতে চান, তাঁদের জন্য বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করা হবে।

সোমবার নিজেদের ওয়েবসাইটে ম্যান্ডারিন ভাষায় একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে চিনা দূতাবাস। জানানো হয় এই তথ্য। যাঁরা ফিরতে চান, তাঁরা সেই বিশেষ বিমানের টিকিট বুক করতে পারেন বলে জানানো হয়েছে। এদিকে, ২৫শে মে জানা গিয়েছে বিশ্বে অন্যান্য আক্রান্ত দেশের মধ্যে ভারত এখন ১০ নম্বরে। এতদিন পর্যন্ত ১১ নম্বরে ছিল ভারত। এবার তালিকায় আরও এক ধাপ উপরে উঠে এল। ইরানকেও পিছনে ফেলে দিল ভারত।

এই পরিসংখ্যানের কথা মাথায় রেখেই নিজের দেশের নাগরিকদের দেশে ফেরাতে চাইছে চিন বলে মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, ফেব্রুয়ারি মাসে করোনা ভাইরাসের আঁতুড় ঘর চিনের উহান থেকে ৭০০ জন ভারতীয়কে সরিয়েছিল নয়াদিল্লি। চিনা দূতাবাস জানিয়ে দিয়েছে, যারা এই বিশেষ বিমানে দেশে ফিরতে চাইছেন, তাঁদের সংক্রমণ রোখার জন্য জারি করা সব ধরণের নিয়ম কানুন মানতে হবে। নয়তো বিমানে ওঠার ছাড়পত্র পাবেন না তাঁরা।

যদি গত ১৪ দিনে এই সব নাগরিকদের কারোর জ্বর বা কাশি, নয়তো করোনা ভাইরাসের লক্ষ্মণগুলির কোনও একটিও দেখা যায়, তবে এই বিশেষ বিমানে উঠতে পারবেন না তিনি। তবে শুধু ভারত নয়, অন্যান্য দেশ থেকেও নিজের নাগরিকদের সরিয়ে নিতে চাইছে চিন।

এর আগে একাধিকবার, বিশ্ব জুড়ে করোনা ছড়িয়ে পড়ার জন্য চিনকে দায়ি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই নিয়ে চলেছে কাদা ছোঁড়াছুড়ির পালাও। হোয়াইট হাউসে একটি বিবৃতিতে ট্রাম্প জানিয়েছেন, “আমরা চিনের কাজে খুশি নই”।

তাই চিনের থেকে ক্ষতিপূরণ চাইতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, এমনই মনে করা হচ্ছিল। তবে চিন জানিয়ে দেয় যে সব দেশ ভাবছে, করোনার জন্য চিন ক্ষতিপূরণ দেবে, তারা দিবাস্বপ্ন দেখছে। এই ভাষাতেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্য ওড়ায় চিন। চিনের স্টেট কাউন্সিলর ও বিদেশ মন্ত্রী ওয়াং হি জানিয়ে দেন, করোনা ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার জন্য চিন দায়ি নয়। তাই এজন্য কোনও ক্ষতিপূরণ তারা দেবে না।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV