বেজিং: চিনা ভূখণ্ডে ভারতীয় সেনারাই ঢুকে পড়েছিল এবং সে দেশের সরকার তা স্বীকারও করে নিয়েছে, এমনটাই দাবি চিনা বিদেশ মন্ত্রীর৷ এর পাশাপাশি তিনিও নিয়মমাফিক সিকিম সীমান্ত থেকে ভারতীয় সেনা প্রত্যাহার করার দাবিও জানান৷ যদিও চিনের এই দাবিকে অতীতে বারবার নস্যাৎ করে এসেছে ভারত৷ ভারতকে সমর্থন করে ভুটানও জানিয়েছে তাদের অধিকৃত এলাকাকে চিন নিজেদের এলাকা বলে দাবি করে চলেছে৷

এদিন চিনা বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ই দুই দেশের সীমান্ত সমস্যা নিয়ে এই প্রথম মুখ খোলেন৷ তিনি বলেন-‘‘ভারতের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা খোলাখুলি মেনে নিয়েছে যে চিনা সেনা তাদের অধিকৃত এলাকায় প্রবেশ করেনি৷ অন্য কথায় ভারত স্বীকার করে নিয়েছে যে তারাই চিনের এলাকায় প্রবেশ করেছে৷’’ অর্থাৎ চিনের এলাকাতে ভারতের সেনারাই অনধিকার প্রবেশ করেছেন বলে দাবি তাঁর৷

আরও পড়ুন: ডোকালাম নিয়ে ভারতেরই পাশে কলকাতার চিনাপট্টি

গত মাসেই চিন দাবি করেছিল যে ভারতীয় সেনারা অবৈধ ভাবে সিকিম লাগোয়া সীমান্ত ডোং লাংয়ে প্রবেশ করেছে৷ ভুটান ও ভারত এই অঞ্চলকে ডোকালাম নামে চিহ্নিত করেছে৷ ডোং লাং এ চিনকে রাস্তা নির্মাণে বাধা দেয় ভারত৷ ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ লোকসভায় জানিয়েছিলেন, রাস্তা নির্মাণ হলে ওই অঞ্চলে শক্তির ভারসাম্য বিঘ্নিত হবে৷ তিনিও দুই দেশকেই সীমান্ত থেকে সেনা প্রত্যাহার করে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের উপায় বের করার পরামর্শ দেন৷

ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল চলতি সপ্তাহে চিনে যাবেন৷ সেখানে ব্রিক্স গোষ্ঠীভুক্ত দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে তার বৈঠকে বসার কথা৷ চিন, অজিত দোভালের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা নিয়ে কোনও সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দেয়নি৷ চিনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে কোন রফা সূত্র বেরিয়ে আসে কিনা তার দিকে তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল৷