নয়াদিল্লি:  ডোকালাম নিয়ে চিনের মিথ্যা ফাঁস! যে নেহেরুর চুক্তির কথা চিনের তরফে দাবি করা হয়েছিল, তা কার্যত ভুয়ো। ফলে, ডোকালাম চিনের, যে দাবি করে আসছিল তাতে মুখ থুবড়ে পড়ল চিন।

সিকিমের ডোকালাম অঞ্চলের অধিকারের স্বপক্ষে সওয়াল করতে গিয়ে বেজিং সম্প্রতি দাবি করেছে, ১৮৯০ সালে চিন-ব্রিটেন চুক্তিকে মান্যতা দিয়েছিলেন জওহরলাল নেহরু। কিন্তু, ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর লেখা চিঠি থেকেই পরিষ্কার, ভূটানের একটি অঞ্চলকে যে চিন নিজেদের এলাকা হিসেবে দাবি করেছিল, তার ঘোর বিরোধিতা করেছিলেন নেহরু। ফলে, যে চুক্তির কথা বলা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

যদিও দীর্ঘদিন ধরে চলা সিকিম-ভুটান সীমান্ত সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে চেয়েছিল ভারত। কিন্তু এই বৈঠকে বসতে রাজি হয়নি চিন। উত্তরে ১৯৫৯ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর চিনা প্রধানমন্ত্রী ঝৌ এনলাইকে লেখা চিঠিতে নেহরু লিখেছিলেন, আমি বুঝতে পারছি না, কেন ভূটান-সিকিম সীমান্ত-সমস্যা আলোচনার পরিধির মধ্যে থাকবে না। নেহরু বলেন, চিনা মানচিত্রে স্পষ্ট, ভূটানের একটা বজড অংশকে তিব্বতের অঙ্গ হিসবে দেখানো হয়েছে। দীর্ঘ চিঠিতে নেহরু চিনকে জানিয়ে দেন, ভূটানের সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছে, তাতে সেদেশের বৈদেশিক সম্পর্ক নিয়ে অন্য দেশের সঙ্গে আলোচনা করার একমাত্র নির্ধারিত মাধ্যম হল ভারত। কারণ, চুক্তি অনুযায়ী, ভূটানের প্রতিনিধিত্ব করছে ভারত সরকার।

চিঠিতে নেহরু সাফ জানিয়ে দেন, ১৮৯০ সালে ব্রিটিশদের সঙ্গে চুক্তির মাধ্যমে চিন স্বীকার করে নেয়, সিকিমের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ (অভ্যব্তরীণ ও বৈদেশিক) করবে ভারত। ১৮৯৫ সালে সিকিমের সীমান্তও স্পষ্টভাবে অঙ্কিত হয়। ফলে, সিকিম নিয়ে কোনও সংশয় থাকার কথা নয়।