নয়াদিল্লি: ভারতের জন্য দুঃসংবাদ৷ ভারত-চিন সীমান্তে চিন যে সেনাদল মোতায়েন রয়েছে তা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করবে পিপলস লিবারেশন আর্মি৷৷ এলাকার নাগরিকদের নিয়ন্ত্রণও সেনার হাতে দেওয়া হয়েছে৷ বৃহস্পতিবার এই খবর প্রকাশ পেয়েছে৷

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ, চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং নাগরিক ভিত্তিক দল তুলে নিয়ে সেখানে সরকারের ম্যানেজমেন্ট চালু করছেন৷ এও খবর সীমান্তের রাজ্যগুলি সীমান্ত থেকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ তুলে নিয়েছে৷ সেই নিয়ন্ত্রণ দেওয়া হয়েছে পিপলস লিবারেশন আর্মিকে৷ সোশ্যাল সাইটের একটি পাব্লিক অ্যাকাউন্টে এটি প্রকাশ পেয়েছে৷ সীমান্তে সেনা সাজানোর মানে ৩ হাজার ৪৮৮ কিলোমিটার LAC-তেও সেনা মোতায়েন করবে চিন৷ পিপলস লিবারেশন আর্মির সমস্ত ফাংশন চালিত করবেন প্রেসিডেন্ট শি জিংপিং৷ সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশনের আওতায় কাজগুলি করা হবে৷

দ্বিতীয়বার ৫ বছরের জন্য ফের ক্ষমতায় এসেছেন শি জিনপিং৷ প্রেসিডেন্টের ক্ষমতার পাশাপাশি দেশের মিলিটারি সিস্টেমও নিজের হাতে রেখেছেন তিনি৷ মনে করা হচ্ছে কমিউনিস্ট পার্টি অফ চায়না দলের প্রতিষ্ঠাতা মাও জেদংয়ের পর তিনি দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী নেতা হতে চলেছেন৷ সম্প্রতি তিনি চিনের উপকূলরক্ষী বাহিনীকে বিতর্কিত দ্বীপগুলি দেখভাল করতে পাঠিয়েছিলেন৷ পূর্ব চিন সাগরের জাপানও এর আওতা থেকে বাদ যায়নি৷ আগে চিনের উপকূলরক্ষী বাহিনী স্টেট ওশিয়ানিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের হয়ে কাজ করত৷ এবার তারা সরাসরি সেনার হয়ে কাজ করতে শুরু করেছে৷

আগে দেশের সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে ব্যবহার করা হত৷ সোনা, বন্য জিনিস, জলবিদ্যুৎ ইত্যাদির সুরক্ষার্থে কাজ করত তারা৷ এখন তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তারা যেন রাষ্ট্রের কথামতো কাজ করে৷ ২০১৩ সাল থেকে ক্ষমতায় আসার পর জিনপিং চিনের সমস্ত মিলিটারিকে নিজের আয়ত্বে নিয়ে এসেছে৷ তার হাত থেকে বাদ যায়নি পুলিশও৷