বেজিং: গত সোমবার সকালে ওড়িশা উপকূল থেকে সফল উৎক্ষেপণ হয়েছে মিসাইল অগ্নি-৫ এর৷ তবে ভারতেই এহেন সাফল্যে স্বভাবতই অসন্তুষ্ট চিন৷ রাষ্ট্রসংঘের নির্দেশ জারি থাকা সত্ত্বেও কি করে এই কাজ দিল্লি করতে পারে এবার তা নিয়েই প্রশ্ন তুলল বেজিং৷

‘‘রাষ্ট্র সংঘের নিরাপত্তা পরিষদের তরফে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় বেশ কিছু নীতি নির্ধারণ করা হয়েছে৷ তা সত্ত্বেও ভারত অগ্নি-৫ নামে একটি মিসাইলের পরীক্ষা চাললো৷ এইভাবে ক্রমাগত নিজেদের সামরিক শক্তি বাড়িয়েই চলেছে ভারত৷ ’’ এক বিবৃতিতে একথা জানিয়েছে চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখ পাত্র হুয়া চিউনিং৷ পাশাপাশি তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘‘অগ্নি-৫ ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে ভারত ও জাপানের সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছে এটি যেকোনো সময় চিনে আঘাত হানতে পারে৷ এই বিষয়ে রাষ্ট্রসংঘের উচিত ভারতের কাছে পূর্ণাঙ্গ তথ্য চাওয়া৷’’

গত সোমবার সকালে পরীক্ষামূলকভাবে অগ্নি-৫ এর উৎক্ষেপণ করা হয় ৷ অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি এই ক্ষেপণাস্ত্র৷ এসআরডিও দাবি করে ১০০০ কেজির ভয়াবহ বিস্ফোরক নিয়ে প্রায় ৫০০০ কিলোমিটারেরও বেশি পথ পারি দিতে পারবে এই মিসাইল৷ এশিয়ার পাকিস্তান ও চিন ছাড়াও ইউরোপেরও একাধিক দেশে যেকোনো সময় আঘাত হানতে পারবে এই মিসাইল৷ এই ক্ষেপণাস্ত্রটি ‘শান্তির অস্ত্র’ বলেও কেন্দ্রের তরফে বর্ণনা করা হয়৷ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ও এসআরডিওর দোটা দলকে শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷

ভারতের এই সাফল্যেই ‘গোঁসা’ হয় লাল চিন৷ এই বিষয়ে তাই খানিকটা ভয় পেয়েই এই ধরনের মন্তব্য করল তারা৷ অন্তত এমনটাই মত আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের৷