ওয়াশিংটনঃ  ক্রমশ বাণিজ্য-যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ছে চিন-আমেরিকা। চিন থেকে আমদানি হওয়া ৫৫ হাজার কোটি ডলারের পণ্যে অতিরিক্ত আরও ৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করল মার্কিন প্রশাসন। এর আগে ওয়াশিংট চিনের একাধিক পণ্যের উপর শুল্ক আরোপ করেছিল। আর সেই পদক্ষেপের পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার পালটা সাড়ে ৭ হাজার কোটি ডলারের মার্কিন আমদানি পণ্যে শুল্ক বসানোর সিদ্ধান্ত নেয় বেজিং প্রশাসন।

চিনের এহেন সিদ্ধান্তের কয়েক ঘন্টার মধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নতুন করে চিনের পণ্যের উপর পাঁচ শতাংশ শুল্ক আরোপ করল। শুধু তাই নয়, টুইটারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তার দেশের কোম্পানিগুলোকে চিন থেকে সমস্ত কাজ গুটিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

আমেরিকা প্রাথমিকভাবে চিনের যে ২৫ হাজার কোটি ডলারের পণ্যে ২৫ শতাংশ শুল্ক কার্যকর আছে, তা ১ অক্টোবর থেকে বেড়ে ৩০ শতাংশ হবে বলে জানান এই রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট। বাকি ৩০ হাজার কোটি ডলারের পণ্যে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বেড়ে হবে ১৫ শতাংশ। এই সমস্ত পণ্যের অর্ধেকে শুল্ক বসবে ১ সেপ্টেম্বর থেকে, ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে কার্যকর হবে পরের অর্ধেকে। ট্রাম্পের ঘোষণার পর মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধির অফিস থেকেও চিনের আমদানি হওয়া পণ্যে আরও শুল্ক আরোপের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। ২৫ হাজার কোটি ডলারের পণ্যে অক্টোবর থেকে ৩০ শতাংশ শুল্ক কার্যকর করার আগে জনমত যাচাইয়ের কথাও জানায় তারা।

চলতি সপ্তাহে ফ্রান্সে হতে যাওয়া জি-৭ সম্মেলনে ট্রাম্পের সঙ্গে বিশ্বের বেশ কয়েকটি শীর্ষ অর্থনীতির দেশের শীর্ষ নেতৃত্বের দেখা হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানেও এই বাণিজ্য উত্তেজনা উত্তাপ ছড়াতে পারে বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের। যদিও বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ কমিউনিস্ট চিন অবশ্য জি-৭ এর এই জোটে নেই।