সান্তিয়াগো: ভারত হোক কিংবা হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত দক্ষিণ আমেরিকার দেশ চিলি, নারী নির্যাতনের ছবিটা সর্বত্রই যেন এক। ভারতের হায়দরাবাদে এক পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে হত্যা কিংবা উত্তরপ্রদেশের উন্নাওতে আদালতে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে তরুণীর উপর অভিযুক্তদের হামলা। আবার কোথাও ধর্ষণ করে খুন, তো কোথাও নাচ থামানোর জন্য নতর্কীকে গুলি। বিগত কয়েকদিন ধরেই একের পর এক নারী নির্যাতনের ঘটনায় স্তম্ভিত দেশ।

নারীর ক্ষমতায়নের স্বপ্ন দেখা ভারত শিউড়ে উঠেছে পর পর এই ঘৃণ্য ঘটনায়। দেশের মেয়েদের প্রতি এমন অত্যচারের দৃশ্য ফুটে উঠেছে লাতিন আমেরিকার দেশ চিলিতেও। ওই দেশেও নারীদের উপর নেমে এসেছে একের পর এক নির্যাতন। নারীদের উপর আক্রমণের প্রতিবাদে এবার যৌন হিংসার বিরুদ্ধে গর্জে উঠল তাঁরা। সেখানকার মহিলারা রাস্তায় নেমে সুর তুললেন লিঙ্গ বৈষম্যকারীদের বিরুদ্ধে। ‘তুমিই ধর্ষক’— প্রতিবাদের অঙ্গ হিসাবে তাঁদের গাওয়া এই গান এখন ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে। যৌন হিংসার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে এই গানের সুরেই ভরসা রাখছে বিশ্ব। এই গানের সুরেই বাঁধা পড়েছে প্যারিস, বার্সেলোনা, মেক্সিকো সিটির নারীবাদীরা।

চিলির রাজধানী শহর সান্তিয়াগো। সেখানকার ন্যাশনাল স্টেডিয়ামের বাইরে গত বুধবার জড়ো হয়েছিলেন হাজার হাজার মহিলা। আট থেকে আশি, বিভিন্ন বয়সী মহিলাদের সেই জমায়েতে সকলেই পরেছিলেন কালো রঙের পোশাক। সঙ্গে গলার লাল রঙের স্কার্ফ। কাপড়ের টুকরো দিয়ে নিজেদের চোখও বেঁধে নিয়েছিলেন তাঁরা। এ ভাবেই হাজার হাজার মহিলা এক সঙ্গে গেয়ে উঠলেন, ‘দ্য ফল্ট ইজ নট উইথ মি, নর হোয়্যার আই ওয়াজ, নর হাউ আই ড্রেসড…’ বাংলায় যার তর্জমা করলে দাঁড়ায় ‘আমি যেখানেই থাকি, যে পোশাক পরেই থাকি, সেটা আমার ভুল নয়।’ হ্যাঁ, ঠিক এই ভাষাতেই জমায়েত থেকে বিশ্বজুড়ে বাড়তে থাকা নারী নির্যাতনের প্রতিবাদের স্বর গর্জে ওঠে।

ধর্ষকদের বিরুদ্ধে তীক্ষ্ণ শাণিত শব্দে সোচ্চার হয়ে নারীবাদের পক্ষে সুর চড়ান তাঁরা। হাজার হাজার মহিলাদের গলা থেকে ভেসে আসা এই গানের সুরেই ধর্ষকদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন ওই মহিলারা। সেই গানের কথায় বাদ যায় নি পুলিশ, অত্যাচারী রাষ্ট্র, প্রেসিডেন্ট, বিচারকরাও।তাঁদেরও ধর্ষক বলে তোপ দেগেছেন নারীবাদীরা। চলতি সপ্তাহের বুধবারে সান্তিয়াগোর প্রতিবাদে সামিল হওয়া ৬৬ বছরের জ্যাকলিন সেনটার্ড বলেন, ‘হাজার হাজার মহিলার সঙ্গে এ ভাবে প্রতিবাদ করতে পেরে আমি উচ্ছ্বসিত।’

‘ধর্ষক’দের বিরুদ্ধে এই প্রতিবাদের সূত্রপাত হয়েছিল গত ২০ নভেম্বর। লাস তেতিস নামের এক নারীবাদী সংগঠন চিলির সৈকত শহর ভ্যালপারাইসোতে জড়ো হয়েছিলেন। সেখানেই গাওয়া হয় ‘তুমিই ধর্ষক’ গানটি। তার পরই যৌন নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের মূল সুর হয়ে ওঠে সেই গান।

গত অক্টোবর মাসে বাস-মেট্রোর ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে প্রথম আন্দোলন শুরু করেন চিলির বাসিন্দারা। দেশের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি এবং বেড়ে চলা মূল্যবৃদ্ধি-সহ আরও বেশ কয়েকটি বিষয়ে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিতে পথে নেমেছিলেন দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশের লক্ষাধিক মানুষ। ‘তুমিই ধর্ষক’ ভাইরাল হতেই যৌন নির্যাতনের বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন চিলির মহিলারা। আর এই সুরের শব্দ-ছন্দ-কথা যেন প্রতীক হয়ে উঠল সারা বিশ্বে নারী নির্যাতনের প্রতিবাদের স্বর হিসাবে।