স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আমফানে কেন্দ্রের টাকা সরাসরি দুর্গতদের হাতে তুলে দেওয়ার আর্জি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর এই চিঠিকে তীব্র কটাক্ষ করলেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। বললেন, বড়দের সব ব্যাপারে ছোটদের কথা বলতে নেই।

নরেন্দ্র মোদী বাংলায় পা রাখতেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি তাঁর কাছে একটি চিঠি পাঠান। বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরী, এই দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর হাত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পাঠানো চিঠিতে দিলীপ ঘোষ লিখেছেন, রাজ্যের হাতে টাকা না দিয়ে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে টাকা দেওয়া হোক। তা না হলে আর্থিক দুর্নীতি হবে।
সংবাদমাধ্যমকে দিলীপ ঘোষ বলেন, “পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির তরফ থেকে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ত্রাণের টাকা ক্ষতিগ্রস্থদের কাছে সোজাসুজি টাকা দেওয়ার কথা বলেছি। কারণ আয়লা , বুলবুল , দু বছর আগের মালদহ – দিনাজপুরের বন্যার ক্ষতিপূরণ বন্টনে রাজ্য সরকার ব্যাপক দুর্নীতি করেছে।”

শুক্রবার কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম দিলীপ ঘোষকে পালটা কটাক্ষ করে বলেছেন, “বড়রা যখন কোনও সিদ্ধান্ত নেয়, কথা বলে। তার মধ্যে ছোটদের কথা বলতে নেই। মাথা গলাতে নেই। এটা আমরা ছোটবেলা থেকে শিখেছি। প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীর মতো দুজন দক্ষ প্রশাসক যখন নিজেদের মধ্যে কোনও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করছেন তখন তার মধ্যে ঢোকা সাজে? এটা বড়দের ব্যাপার। ছোটরা নাক গলাবে কেন? ওনারা বোধহয় এই সৌজন্যটা জানেন না।”

উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গের বিধ্বস্ত জেলাগুলি পরিদর্শন করতে শুক্রবার রাজ্যে আসেন প্রধানমন্ত্রী। হেলিকপ্টারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে নিয়ে দুই ২৪ পরগনার বিপর্যস্ত এলাকা ঘুরে দেখেন তিনি। পরে বসির‌হাট কলেজে বৈঠক করেন। সেখানেই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, শীঘ্রই কেন্দ্রীয় টিম এসে রাজ্যের পরিস্থিতি দেখে ক্ষয়ক্ষতির হিসেব করবে। এর পরে কেন্দ্র অর্থের ব্যবস্থা করবে। আপাতত কেন্দ্র এক হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে রাজ্যকে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা