হাওড়া: চার দিন ধরে নিখোঁজ থাকা শিশুর দেহ উদ্ধার হল তারই মামা বাড়ি সংলগ্ন একটি পুকুর থেকে৷ ঘটনা ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় হাওড়ার ডোমজুর এলাকায়৷ ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে স্থানীয়রা গাড়ি আটকে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে৷ তাঁদের অভিযোগ বছর সাতের সায়ন নস্করকে খুন করে ওই পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়েছে৷ অবিলম্বে দোষীকে গ্রেফতারের দাবিও করেন তাঁরা৷

আরও পড়ুন- মহর্ষির পাশেই মিয়া খলিফার নাম, প্রশ্নপত্রে তোলপাড় বাংলাদেশ

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সায়ন মুম্বাইতে থাকত৷ গরমের ছুটিতে বুধবার হাওড়া ডোমজুড়ে তার মামা বাড়িতে আসে৷ সেদিন দুপুরে খেয়ে বাড়ির সামনে খেলছিল৷ সন্ধ্যা হয়ে গেলেও সে বাড়ি ফেরেনি৷ তাই তার পরিবার সায়নকে খুঁজতে বেরোয়৷ রাত গড়িয়ে গেলেও কোথাও খুঁজে পায়নি৷

আরও পড়ুন- শিখ হত্যা ও রাজীবের প্রসঙ্গ টেনে, সাধ্বী প্রজ্ঞার পাশে দাঁড়ালেন খোদ প্রধানমন্ত্রী

এরপর তাঁরা ডোমজুড় থানায় সায়ন নিখোঁজ হওয়ার ডাইরি করে৷ অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্তে নামে ডোমজুড় থানার পুলিশ৷ ঘটনাস্থলে পুলিশ কুকুর নিয়ে তল্লাশি চালায়৷ কিন্তু তখন সায়নকে পাওয়া যায়নি। তিনদিন পর শনিবার সায়নের মামার বাড়ি থেকে ৫০ ফুট দূরত্বে একটি পুকুর তার দেহ ভেসে উঠতে দেখে স্থানীয়রা৷ খবর দেওয়া হয় পুলিশকে৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়৷

আরও পড়ুন- রক্তাক্ত শ্রীলঙ্কা: সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে মানবতার লড়াইয়ে রক্তদাতাদের ভিড়

স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবারের অভিযোগ পরিকল্পনা করে সায়নকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে। তারপর তাকে ওই পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়৷ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত দোষীদের শাস্তির দাবিতে সরব হয় গ্রামবাসীরা। প্রায় খণ্টাখানেক বিক্ষোভ চলার পর পুলিশ দোষীদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। পরে মৃতের পরিবার খুনের অভিযোগ দায়ের করে ডোমজুর থানায়৷ অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷