স্টাফ রিপোর্টার, দিঘা: বাবা মা স্নানে মত্ত, এরই মধ্যে সমুদ্রের ঢেউয়ে তলিয়ে যায় শিশু৷ পুলিশ তাকে নিখোঁজ ধরে তল্লাশি শুরু করে৷ ৭ বছরের শিশু আবির ধাড়ার দেহ উদ্ধার হল সোমবার সকালে৷

পুলিশ জানিয়েছে টানা খোঁজ করেও কোথাও তাঁর সন্ধান মেলেনি। দিঘার মেরিনা ঘাটের সমুদ্রের পাড়ে উদ্ধার হল শিশুটির নিথর দেহ। আবির গত শুক্রবার তার বাবা, মা, দিদি ও এলাকার একদল পর্যটকের সঙ্গে হুগলির জলঙ্গী থেকে এসেছিল। তাঁরা এসে ওল্ড দিঘার শিবালয় রোডের একটি হোটেলে ওঠে।

শনিবার পরিবারের সঙ্গে সমুদ্রে স্নানে যায় শিশুটি। কিন্তু তার বাবা ও মা অন্য শিশুদের সঙ্গে তাঁদের ছেলে ও মেয়েকে রেখে সমুদ্র স্নানে মত্ত হয়ে যান। সেই সময় তাঁরা এতটাই অন্যমনস্ক হয়ে যান যে ছেলেটি কখন তাঁদের পিছু ধাওয়া করে সমুদ্রে নেমে গিয়েছে তা কেউই খেয়াল করেননি। বেলা ১টা নাগাদ তাঁদের খেয়াল হয়, শিশুপুত্রটিকে দেখা যাচ্ছে না। কেউই বলতে পারেনি ছেলেটি কোথায় গেল।

শনিবার সন্ধ্যে নাগাদ দিঘা থানায় তাঁরা শিশুর নিখোঁজের ঘটনাটি জানান। দিঘা থানার পুলিশ প্রথম থেকেই নিশ্চিত ছিল, বাবা মায়ের গাফিলতিতেই শিশুটি জলে তলিয়ে গিয়ে থাকবে। সেই আশঙ্কাই সত্যি হল সোমবার।

দিঘা থানার ওসি বাসুকিনাথ বন্দ্যোপাধ্য়ায় জানান এদিন খুব সকালে শিশুটির দেহ স্থানীয়দের নজরে আসে। খবর পেয়ে মৃতদেহটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। সেই সঙ্গে মৃতের বাবা ও মা’কেও খবর দেওয়া হয়েছে। তাঁরা এসে দেহটিকে শনাক্ত করে।দেহটিকে ময়না তদন্তের জন্য কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর দেহটিকে তার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে।