স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দায়িত্ব নিয়েছেন। সেই কারণেই এন আর সি নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতি প্রিয় মল্লিক। জ্যোতিপ্রিয়বাবুর বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রী মমতা দেশের একজন বিচক্ষণ নেত্রী। সারা দেশের প্রথম দু-তিন জন নেতা নেত্রীর মধ্যে তিনি আছেন।

সেক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রী যখন বাংলার মানুষকে আশ্বাস দিয়েছেন, তখন কিছু ভয় নেই। এনআরসি নিয়ে বাংলার জনতাকে মহা আশ্বাস বাণী শুনিয়ে রেখেছেন মমতা। বলেছেন, আপনাদের গায়ে হাত দিতে হলে আগে আমার গায়ে হাত দিতে হবে। বাংলায় এন আর সি হবে না।

অন্যদিকে, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রাজ্যে এসে বলেছেন, সি এ বি বা সিটিজেনশিপ আমেন্ডমেন্ট বিল পাশ হয়ে আইন তৈরি হবে। তার পর হবে এন আর সি। তাঁর অভিযোগ, রাজ্য সরকার মানুষকে ভুল বোঝানো বন্ধ করুক। যদিও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় জানিয়েছেন, “মুখ্যমন্ত্রী যখন বলেছেন, তখন বাংলা থেকে আমাদের কাউকে তাড়ানো যাবে না। সবাই বাংলায় থাকবেন। সুন্দর ভাবে থাকবেন। সুস্থ ভাবে থাকবেন।”

এদিকে, সিটিজেনশিপ আমেন্ডমেন্ট বিলের সমর্থনে রাজ্য বিজেপি নেতাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লেখার পরামর্শ দিয়েছেন অমিত শাহ। সূত্রের খবর, নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি তথা দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেছেন, বিজেপির সদস্য সংখ্যা কম নয়। এই রাজ্যে সদস্যতা অভিযান শেষ হওয়ার ওর দেখা গিয়েছে ৭০ লাখেরও বেশি সদস্য হয়েছে। বর্তমানে তা কোটি। এই বিপুল সদস্যের অর্ধেকও নাগরিকত্ব বিলের এর সমর্থনে চিঠি লিখলে তা বিশাল ব্যাপার হবে।

স্বাভাবিকভাবেই, সিএবি এবং এন আর সি – নিয়ে এই দুর্গাপুজোর সময় আলোচনা তুঙ্গে। মমতা যা বলেছেন অমিত তাঁর বিরোধিতা করে বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রী জনতাকে ভুল বোঝাচ্ছেন। এন আর সি হলে কোনও হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিষ্টান, শিখ এর নাম বাদ পড়বে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এন আর সি নিয়ে যা বলেছেন তাতে সমর্থন নেই অমিত শাহ’র। মমতার মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মমতার উপরে বাংলার মানুষকে ভরসা রাখতে বলেছেন।