নয়াদিল্লি: মামলার পাহাড় জমে সুপ্রিম কোর্টে৷ কিন্তু বিচারপতির অভাবে সেগুলি নিস্পত্তি হতে পারছে না৷ সমস্যার আশু সমাধানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে দুটি চিঠি লিখলেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ৷ প্রথম চিঠিতে মোদীকে বিচারপতির অপ্রতুলতার কথা মনে করিয়ে দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরুর আর্জি জানালেন দেশের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ৷

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ওই চিঠিতে লেখেন, সুপ্রিম কোর্টে ৫৮ হাজার মামলা ঝুলছে৷ অথচ বিচারপতির অভাবে সেগুলির শুনানি হচ্ছে না৷ ফলে মামলাগুলির শুনানি পিছিয়ে যাচ্ছে৷ আবার নতুন করেও অনেকে মামলা করছেন৷ ফলে প্রতিদিনই মামলার সংখ্যা বাড়ছে৷ এদিকে সর্বোচ্চ আদালতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিচারপতি নেই৷ গুরুত্বপূর্ণ মামলা গুলির ফয়সলা করার জন্য সাংবিধানিক বেঞ্চও ঠিকমতো তৈরি করা যাচ্ছে না৷ এতে সমস্যা আরও প্রকট হচ্ছে৷

গত তিন দশকে শম্বুকের থেকেও কম গতিতে সবোর্চ্চ আদালতে বিচারপতি নিয়োগ হয়েছে৷ চিঠিতে রঞ্জন গগৈ নিজেই লেখেন, আজ থেকে তিন দশক আগে ১৯৮৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির সংখ্যা ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২৬ করা হল৷ দু’দশক পর ২০০৯ সালে প্রধান বিচারপতিকে ধরে বিচারপতির সংখ্যা বেড়ে হল ৩১৷ বর্তমানে ৫৮ হাজার মামলা সাপেক্ষে ৩১ জন বিচারপতি অর্থাৎ বিচারপতি পিছু গড়ে ১৯০০ মামলা ঝুলছে৷ একজন বিচারপতির পক্ষে এতগুলি মামলার নিষ্পত্তিও অসম্ভব৷

ফলে প্রতিষ্ঠানের কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে এবং মামলার নিষ্পত্তি করে বিচারপ্রার্থীদের সুবিচার পাইয়ে দিতে দ্রুত বিচারপতি নিয়োগ প্রয়োজন৷ প্রধান বিচারপতির লেখা দ্বিতীয় চিঠিতে বিচারপতিদের অবসরের বয়স ৬২ থেকে বাড়িয়ে ৬৫ করার আর্জি জানান৷ এতেও অনেক মামলার নিষ্পত্তি হবে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য অভিজ্ঞ বিচারপতিরা কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন৷