নয়াদিল্লি : ভাল নেই প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম। উৎসবের মরশুমেও পেলেন না জেল থেকে রেহাই। অক্টোবরের ১৭ তারিখ পর্যন্ত আপাতত জেলের সেলেই কাটবে চিদাম্বরমের সময়। সিবিআই সূত্রে তেমনই খবর। জানা গিয়েছে, জেলের খাবার মুখে তুলতে পারছেন না প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। ফলে ক্রমশ ওজন কমছে তাঁর। ইতিমধ্যেই ৪ কেজি ওজন কমে গিয়েছে চিদাম্বরমের। নিজের স্বাস্থ্যের অবনতির কথা জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে বৃহস্পতিবার জামিনের আবেদন করেছিলেন চিদাম্বরম। তবে লাভ হয়নি।

তিনদিন আগেই তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ করেছিল দিল্লি হাইকোর্ট। তারপরেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন প্রাক্তন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। চিদাম্বরমের আইনজীবী ও কাউন্সেল কপিল সিব্বল তাঁর হয়ে জামিনের জন্য সওয়াল করেন এদিন। বিচারপতি এন ভি রমনের ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হয়। পরে বিচারপতি জানান এই মামলা সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের কাছে পাঠানো হয়েছে। তিনিই এই মামলায় চূড়ান্ত রায় দেবেন। ১২ই অগাস্ট পি চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করে সিবিআই। মূল অভিযোগ, আই এন এক্স মিডিয়া মামলা। এই মামলাতে মূল অভিযুক্ত চিদাম্বরম এবং তাঁর পুত্র কার্তি।

সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, নিজের গ্রেফতারি বাঁচাতে ড্রাইভার এবং আপ্তসহায়ককে গাড়ি থেকে নামিয়ে নিজেই গাড়ি চালিয়ে বেপাত্তা হয়ে যান দেশের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্র এবং অর্থ মন্ত্রী পি চিদাম্বরাম। এরপর কংগ্রেস সদর দফতরে তিনি দেখা দেন। খবর পান, সেখানেও সিবিআই হানা দিয়েছে। কংগ্রেস দফতর থেকেও পালন তিনি। কংগ্রেস দফতর থেকে তাঁদের কোনও নেতা সিবিআইয়ের ভয়ে এইভাবে পালিয়েছেন, একথা অনেক বয়স্ক কংগ্রেস নেতা মনে করতে পারেন না৷ তিহারে জেল নম্বর ৭, ওয়ার্ড নম্বর ২, সেল নম্বর ১৫-ই এখন পি চিদাম্বরমের বর্তমান ঠিকানা।

আইএনএক্স মিডিয়া কেস-এ সিবিআই গ্রেফতার করেছে চিদাম্বরমকে৷ জেলে তার প্রতিবেশি জম্মু ও কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদীনেতা ইয়াসিন মালিক৷ প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে জোর আলোচনা শুরু হয়ে যায়, মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সব থেকে আক্রমণত্মক কন্ঠকেই গ্রেফতার করেছে সিবিআই৷ একসময় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হিসাবে অমিত শাহ’র বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিল চিদাম্বরম৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ে তা সুদে-আসলে ফিরিয়ে দিয়েছেন শাহ৷