করোনাভাইরাসের নতুন প্রবাহ প্রতিদিনের সঙ্গে সঙ্গেই তার পরিধি বাড়িয়ে চলেছে। আরো বেশি আশঙ্কাজনক ও ক্ষতিকারক হয়ে উঠছে এই ভাইরাসটি।

দ্বিতীয় প্রবাহে ইতিমধ্যেই বহু মানুষ পরিজনদের হারিয়েছেন। হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাব, বেডের অভাব নিত্যনতুন সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখন প্রাথমিক পর্যায়ে রোগীরা খুব বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন এবং এই সমস্ত লক্ষণ এর পরেই তাদের দ্রুত মৃত্যু ঘটছে। এমন একটি সাধারণ লক্ষণ বুকে ব্যথা।

এটি সাধারণ হলেও কিন্তু এতেও আমাদের সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত। ডাক্তাররা বলছেন যে করোনা পজিটিভ রোগীদের বুকে ব্যথা একটি সাধারণ লক্ষণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সাধারণ কিছু ঘটনার ক্ষেত্রে এরকমই দেখা যাচ্ছে। তাই এখন এটি সর্বতোভাবে শ্বাস ব্যবস্থার সংকেত।

বুকে ব্যথা বা অস্বস্তি মহামারীর একমাত্র লক্ষণ নয়। তবে শরীরের যে সমস্ত সমস্যা হচ্ছে সেগুলোর মিলিত লক্ষণ হলো এই বুকে ব্যথা।

অনেক সময় রোগীদের শ্বাসকষ্ট হয়। ভাইরাসের কারণে বুকে ব্যথা শ্বাসনালীতে ইনফেকশনের কারণে হতে পারে। এমন অবস্থায় দ্রুত ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন।

শুকনো কাশি: শুকনো কাশি মহামারী আক্রান্ত রোগীদের অন্যতম লক্ষণ। ভাইরাসটির ফলে যে শুকনো কাশির সৃষ্টি হয় তার ফলে শ্বাস-প্রশ্বাস ব্যবস্থা প্রভাবিত হয়।

ক্রমাগত শুকনো কাশি এবং জোরে জোরে কাশির ফলে বুকে ব্যথার সৃষ্টি হয় এবং এই শুকনো কাশির ফলে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা হতে পারে। এর ফলে বুকের পাশে যে মাংসপেশিগুলো থাকে সেগুলো ভেঙেও যেতে পারে বলে জানিয়েছেন ডাক্তারেরা।

কোভিড নিউমোনিয়া: নিউমোনিয়া মহামারীতে আক্রান্ত রোগের অন্যতম লক্ষণ যার ফলে তাদের স্বাস্থ্য গুরুতরভাবে ভেঙ্গে পড়ে। ফুসফুসের এয়ার ব্যাগ ফুলে যাওয়ার কারণে এই সমস্যা হয় বলে জানা গিয়েছে।

এর ফলে বুকে ফ্লুইডের মাত্রা বেড়ে যায় এবং এই লক্ষণ আরো বেশি গভীর হতে থাকে।

হৃদ সংক্রান্ত রোগ: কার্ডিয়াক রোগ বা করোনারি আর্টারি রোগে রোগীদের যথেষ্ট সাবধান থাকতে হবে শরীরে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এই ইনফেকশন শরীরের অন্যান্য রোগ গুলিকেও গভীরভাবে প্রভাবিত করতে পারে। মায়োকার্ডইটিস, মায়েলজিয়ার মত বেশ কিছু হৃদ সংক্রান্ত রোগ হতে পারে এর ফলে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.