নয়াদিল্লি: সহজে ভারতে ব্যবসা করার পদক্ষেপ হিসেবে অর্থনৈতিক সংকট কালে ব্যবসায়ীদের কিছু সুবিধা দিতে আগ্রহী কেন্দ্র। অর্থমন্ত্রকের প্রস্তাব‌‌ বেশ কিছু ছোটখাটো অপরাধের জন্য যেন জেলে যেতে না হয়। যেমন- চেক বাউন্স, ঋণ পরিশোধ করতে না পারা ইত্যাদি।

এ বিষয় যাদের স্বার্থ জড়িয়ে তাদের কাছ থেকে সরকার মতামত চেয়েছে সংশ্লিষ্ট ১৯টি অর্থনৈতিক অপরাধের ব্যাপারে, যেগুলি লঙ্ঘনে শাস্তি স্বরূপ জেল-জরিমানা ইত্যাদি হয়ে থাকে। এজন্য সরকার যেসব আইন গুলি সংশোধন করতে চায় তার মধ্যে রয়েছে, নেগোশিয়েবল ইন্সট্রুমেন্ট আইন , এলআইসি আইন, আর বি আই আইন, ব্যাংকিং রেগুলেশন আইন, চিটফান্ড আইন ইত্যাদি।

অর্থ মন্ত্রক এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে যাতে ছোটখাটো দোষ ত্রুটির অপরাধ হিসেবে গণ্য না হয়। এর ফলে আশা করা হচ্ছে সহজে ব্যবসা করার দীর্ঘ পথে ফিরে আসা যাবে এবং রেহাই দেবে জেল ও আইনি ব্যবস্থা থেকে। পাশাপাশি আরও জানানো হয়েছে, এমন উদ্যোগের ফলে সরকারের উদ্দেশ্য ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ সবকা বিশ্বাস’ পূরণ হতে সহায়তা করবে। এই বিষয়ের ‌ সঙ্গে স্বার্থ জড়িতদের মতামত পাওয়ার পর সরকার, আর্থিক পরিষেবা দপ্তর অপরাধ গণ্য নয় এমন অর্থনৈতিক দোষ-ত্রুটিগুলিকে একবার দেখে নেবে ।

গত মাসে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এদেশে সহজে ব্যবসা করতে পারার কথা মাথায় রেখে প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে ছোটখাটো ভুলত্রুটিকে অপরাধ গণ্য হবে না বলে আলাদা করেন। ইতিমধ্যে সরকার জানিয়েছে, নাগরিক সমাজ, শিক্ষাবিদ, সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থা ও জনগণের কাছ থেকে মতামত নেওয়া হবে।

যেখানে করোনা ভাইরাস অতি মহামারী অর্থনীতির প্রতিটি কোনায় ‌ আঘাত করছে, তখন নরেন্দ্র মোদী সরকার বেশ কিছু বিশেষ ঘোষণা করেছে এই অর্থনীতিকে বাঁচাতে।‌২১ লক্ষ কোটি টাকার আত্মনির্ভর ভারত নির্মাণ প্যাকেজের মাধ্যমে সরকার জানিয়েছে, তারা চেষ্টা করছেন এর সুবিধা যাতে দ্রুত সকলের কাছে পৌঁছে যায়।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।