ভাস্কো: আইএসএল-এর প্রথম ম্যাচেই জয় ছিনিয়ে নিল চেন্নাইয়িন এফসি৷ মঙ্গলবার ভাস্কোর তিলক ময়দান স্টেডিয়ামে জামশেদপুর এফসি-কে ২-১ গোলে হারায় তারা৷ ম্যাচের শুরুতে অনিরুদ্ধ থাপার দুরন্ত গোলে আইএসএলের সপ্তম সংস্করণে জয় দিয়ে অভিযান শুরু করল দু’বারের চ্যাম্পিয়নরা৷

টানটান উত্তেজনার ম্যাচে দলগত পারফরম্যান্সের নিদর্শন রাখল সাবা লাজলোর দল৷ গত বছর চেন্নাইয়িন কোচ ছিলেন ওয়েন কোয়েল৷ কিন্তু এবার তাঁকে সরিয়ে লাজলোরকে দায়িত্ব দেয় চেন্নাইয়িন থিঙ্কট্যাঙ্ক৷ আর প্রাক্তন চেন্নাইয়িন কোচ ওয়েন কোয়েল এখন জামশেদপুরের দায়িত্ব। পুরনো দলের কাছে ২-১ গোলে হার হজম করতে হল কোয়েলকে।

খেলার শুরুতেই গোল করে চেন্নাইয়িনকে এগিয়ে দেন অনিরুদ্ধ থাপা। ৫৩ সেকেন্ডের মাথায় ডান দিক থেকে আসা ক্রসে জোরালো শট নেন থাপা। আইএসএলের সপ্তম সংস্করণে এটাই দ্রুততম গোল। বল জালে জড়িয়ে যায়। ব্যবধান বাড়ান ইসমা গনকাল্ভস। প্রথম গোলের পাসটিও তিনিই বাড়িয়ে ছিলেন। ২৬ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে ব্যবধান বাড়ায় চেন্নাইয়িন। বক্সের ভিতরে জামশেদপুরের আইজ্যাক চেন্নাইয়িনকে ছান্তেকে ধাক্কা দিলে পেনাল্টি পায় চেন্নাইয়ন। পেনাল্টি থেকে গোল করে স্কোরলাইন ২-০ করেন ইসমা।

ম্যাচের তিন নম্বর গোলটিও আসে প্রথমার্ধে। বিরতির কিছু আগে ব্যবধান কমায় জামশেদপুর। ভালসকিসের গোলে ব্যবধান কমায় তারা। গতবছর চেন্নাইয়িন এফসি-র হয়ে খেলেছিলেন ভালসকিস। দ্বিতীয়ার্ধে স্কোরলাইন অপরিবর্তিত থাকে। দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণ প্রতি-আক্রমণ ঝড় তুলে দুরন্ত ফুটবল উপহার দেন জামশেদপুর ও চেন্নাইয়িন এফসি-র ফুটবলাররা।

গত বারের গোল্ডেন বুটজয়ী নেরিজুস ভালসকিস গোলের ব্যবধান কমালেও শেষ হাসি হাসতে পারেনি ওয়েন কোয়েলের দল। একাধিক সুযোগ পেয়েও চেন্নাইয়িন বাড়াতে পারেনি গোলের ব্যবধান। একটি গোল শোধ করার পর জামশেদপুর মরিয়া চেষ্টা করলেও জয়ের জন্য আসল কাজটা করতে ব্যর্থ। দু’বারের আইএসএল জয়ীদের বিরুদ্ধে যদিও দ্বিতীয়ার্ধে বেশ চাপ তৈরি করে ছিল জামশেদপুর। ম্যাচের সেরা হয়েছেন অনিরুদ্ধ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I