মুম্বই: সোমবার ২০২১ আইপিএলে দ্বাদশ ম্যাচ৷ ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে মুখোমুখি তিনবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস ও প্রথম চ্যাম্পিয়ন রাজস্থান রয়্যালসের৷ প্রথম হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে ট্র্যাকে ফিরেছে ধোনির সুপার কিংস৷ সঞ্জু স্যামসনের নেতৃত্বে রাজস্থান রয়্যালস প্রথম ম্যাচে হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচই জয়ের স্বাদ পেয়েছে৷

ওয়াংখেড়ে যে পিচে আজ চেন্নাই ও রাজস্থান খেলবে, সেখানে রবিবার পঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে ১৯৬ রান তাড়া করে জিতেছে দিল্লি ক্যাপিটালস৷ স্বাভাবিকভাবেই আজদের ম্যাচেও হয়ে চলেছে হাইস্কোরিং৷ এখনও পর্যন্ত ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আইপিএলের ৭৮টি ম্যাচ খেলা হয়েছে৷ প্রথম যারা ব্যাটিং করেছে, তাড়া জিতেছে ৩৭ বার৷ আর রান তাড়া করে জয় এসেছে ৪২ বার৷ সুতরাং টস জিতে এখানে রান তাড়া করতে পছন্দ করবেন অধিনায়করা৷ তবে দুই দলই তাদের শেষ ম্যাচ জেতাই এদিন দলে খুব বেশি পরিবর্তনের পথে হাঁটবে না৷

ওয়াংখেড়ের পিচে প্রথমে ব্যাটিং করে সর্বাধিক স্কোর এক উইকেটে ২৩৫ রান৷ ২০১৫ আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সে বিরুদ্ধে এই স্কোর করেছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর৷ আর সর্বনিম্ন স্কোর ৬৭ রান৷ ২০০৮ সালে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে যা করেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স৷ আর রান তাড়া করে সর্বাধিক ১৯৮ তুলে ম্যাচ জিতেছিল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ ২০১৯ সালে এই স্কোর করে পঞ্জাবের বিরুদ্ধে জিতেছিল মুম্বই৷

চলতি আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে ওয়াংখেড়েতে সর্বাধিক ৮২ রান করেছেন মোয়েন আলি৷ আর বল হাতে সিএসকে-র হয়ে সফল দীপক চাহার৷ কয়েকদিন আগে এখানে পঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে মাত্র ১৩ রান দিয়ে চাহার তুলে নিয়েছেন চার উইকেট৷ যা দীপকের আইপিএল কেরিয়ারে সেরা বোলিং৷ আর রাজস্থান অধিনায়ক স্যামসন তাদের প্রথম ম্যাচে পঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে ১১৯ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেছেন৷ আর অল-রাউন্ডারদের মধ্যে চলতি আইপিএল সফল অল-রাউন্ডার হলেন রাজস্থানের ক্রিস মরিস৷ দু’টি ম্যাচে তিনটি উইকেট এবং ৩৮ রান করেছেন আইপিএল নিলামের ইতিহাসে সবচেয়ে দামি ক্রিকেটার৷

চেন্নাই সুপার কিংস সম্ভাব্য একাদশ: মহেন্দ্র সিং ধোনি (ক্যাপ্টেন), সুরেশ রায়না, রীতুরাজ গায়কোয়াড, রবিন উথাপ্পা, ফ্যাফ ডু’প্লেসিস, স্যাম কারেন, ডোয়েন ব্র্যাভো, রবীন্দ্র জাদেজা, মোয়েন আলি, দীপক চাহার ও শার্দুল ঠাকুর৷

রাজস্থান রয়্যালস সম্ভাব্য একাদশ: সঞ্জু স্যামসন (ক্যাপ্টেন), জোস বাটলার, রিয়ান পরাগ, রাহুল তেওটিয়া, জয়দেব উনাদকট, ডেভিড মিলার, মনন ভোরা, শিভম দুবে, ক্রিস মরিস, মুস্তাফিজুর রহমান ও চেতন সাকারিয়া৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.