নয়াদিল্লি: প্রথম ম্যাচে কোহলিদের নাস্তানাবুদ করে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নের মতোই শুরু করেছিল ইয়েলো ব্রিগেড। দ্বিতীয় ম্যাচে দিল্লির বিরুদ্ধে থ্রিলার জয়ে ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস বুঝিয়ে দিল ট্রফি দরে রাখার লক্ষ্যে কোমর বেঁধেই নেমেছে তারা। বুধবার ফিরোজ শা কোটলায় দিল্লি ক্যাপিটালসকে ৬ উইকেটে হারিয়ে টানা দু’ম্যাচে জয় তুলে নিল গতবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস। দিল্লির ১৪৭ রানের জবাবে বল ২ বল বাকি থাকতে লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছে গেল তারা।

সহজ লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে মাত্র ৫ রানে রায়ডু ফিরে গেলেও দ্বিতীয় উইকেটে ওয়াটসন-রায়নার ৫১ রানের পার্টনারশিপ জয় অনেকটাই সহজ করে দেয় চেন্নাইয়ের। ৪টি বাউন্ডারি ও ৩টি ওভার বাউন্ডারি সহযোগে ২৬ বলে ৪৪ রানের মারকাটারি ইনিংস খেলেন অজি ওপেনার শেন ওয়াটসন। ওয়াটসন ফিরে গেলে রায়না সঙ্গে জুটি বাঁধেন কেদার যাদবের সঙ্গে। কিন্তু মারমুখী হয়ে উঠতেই ১৬ বলে ৩০ রান করে সাজঘরে ফিরতে হয় বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানকে।

৯৮ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর চতুর্থ উইকেটে যাদবের সঙ্গে অধিনায়ক ধোনির ৪৮ রানের পার্টনারশিপ দলকে পৌঁছে দেয় জয়ের দোরগোড়ায়। অন্তিম ওভারে সিএসকে’র জয়ের জন্য দরকার ছিল মাত্র ২ রান। কিন্তু শেষ ওভারে রাবাদার প্রথম বলে ঠকে যান যাদব। ৩৪ বলে ২৭ রানে যখন আউট হন যাদব, তখন চেন্নাইয়ের দরকার ৫ বলে ২ রান। ক্রিজে নেমে দক্ষিন আফ্রিকান পেসারের প্রথম দু’বল ব্যাটে ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন ডোয়েন ব্র্যাভো। সহজ ম্যাচে হঠাৎ করেই বইতে শুরু করে টেনশনের চোরাস্রোত। ঠিক তখনই চতুর্থ বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন ব্র্যাভো। ৩৫ বলে ৩২ রানের অপরাজিত ইনিংস আসে অধিনায়কের ব্যাট থেকেও।

এর আগে এদিন টসে জিতে ঘরের মাঠে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন দিল্লি অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার। শুরুটা ভালো হলেও স্লগ ওভারে সুপার কিংস বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং লম্বা হতে দেয়নি দিল্লির ইনিংস। প্রথম ম্যাচে ধুন্ধুমার ব্যাটিংয়ের পর ধোনির দলের বিরুদ্ধে এদিন ১৩ বলে ২৫ রান করলেও শেষ অবধি দলের ইনিংসকে টেনে নিয়ে যেতে পারলেন না ঋষভ পন্ত।

তবে অর্ধশতরান এল ওপেনার শিখর ধাওয়ানের ব্যাট থেকে। আরেক ওপেনার তরুণ পৃথ্বী শ’র ব্যাট থেকে এল ১৬ বলে ২৪। শেষদিকে চেন্নাইয়ের মার্জিত বোলিংয়ের সামনে অক্ষর প্যাটেল ও রাহুল তেওটিয়ার ব্যাটে ভর করে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৭ রান তোলে দিল্লি ক্যাপিটালস। স্লগ ওভারে ব্র্যাভো তো ছিলেনই। চেন্নাইয়ের বোলিংয়ে এদিন ভরসা জোগালেন মাহির বিশ্বস্ত সেনাপতি রবীন্দ্র জাদেজাও।

৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিলেন ক্যারিবিয়ান তারকা ব্র্যাভো। একটি করে উইকেট নিলেও কৃপণ বোলিং করলেন জাদেজা ও চাহার। জাদেজা যখন ৪ ওভারে খরচ করলেন মাত্র ২৩, চাহারের বোলিং ফিগার তখন আরও কৃপণ। নির্ধারিত ৪ ওভারে মাত্র ২০ রান খরচ করলেন এই তরুণ পেসার। মূলত বোলারদের গড়ে দেওয়া ভিতেই সহজ লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করে প্রথম দুই ম্যাচ পকেটে পুড়ে নিল ধোনি অ্যান্ড কোম্পানি।