চেন্নাই: শুরুটা ভালোই করেছিলেন ওয়াটসন-ডু প্লেসি জুটি। কিন্তু অশ্বিন নেতৃত্বাধীন কিংস ইলেভেন বোলিং হঠাৎই দুরন্ত কামব্যাক করে ম্যাচে। ওপেনিংয়ে ডু প্লেসির দুরন্ত অর্ধশতরানেও একসময় ১৫০ অনেক দূরে মনে হচ্ছিল। সেখান থেকে স্লগ ওভারে মহেন্দ্র সিং ধোনি ও অম্বাতি রায়ডুর ব্যাটে পঞ্জাবকে লড়াকু ১৬১ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁড়ে দিল চেন্নাই সুপার কিংস।

একদা সতীর্থ রবি অশ্বিনের দলের বিরুদ্ধে চিপকে এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। ৮ বছর চেন্নাই ফ্র্যাঞ্চাইজিতে খেলার পর গত মরশুমে কিংস ইলেভেনে অন্তর্ভুক্তি ঘটে অশ্বিনের। কিন্তু চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে চিপকে মাঠে নামা হয়নি। সেকারণে এদিনের ম্যাচ অশ্বিনের কাছে ছিল আক্ষরিক অর্থে ‘হোমকামিং’।

জয়ের সরণিতে ফেরার লক্ষ্যে একাদশে এদিন একাধিক পরিবর্তন করে চেন্নাই। মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে হারের পর দল থেকে বাদ পড়েন শার্দুল ঠাকুর, মোহিত শর্মা এবং ডোয়েন ব্র্যাভো। পরিবর্তে মরশুমে প্রথমবারের জন্য দলে আসেন ফাফ ডু প্লেসি এবং স্কট কুগেলিন। দলে ফেরেন হরভজন সিংও। অন্যদিকে চতুর্থ জয়ের লক্ষ্যে জোড়া পরিবর্তন করে চিপকে নামে অশ্বিন অ্যান্ড কোম্পানি। দলে ফেরেন‘ইউনিভার্স বস’ ক্রিস গেইল ও মুরগান অশ্বিন।

বড় রানের লক্ষ্য নিয়ে এদিন ভালোই শুরু করে চেন্নাইয়ের ওপেনিং জুটি। ৭.২ ওভারে দলীয় ৫৬ রানে ব্যক্তিগত ২৬ রানে রবি অশ্বিনের শিকার হন ওয়াটসন। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে রায়নার সঙ্গে ৪৪ রান যোগ করে দলের রান ১০০ পার করেন ডু প্লেসি। একইসঙ্গে মরশুমের প্রথম আবির্ভাবেই অর্ধ-শতরান আসে এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানের থেকে। পঞ্জাব বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে এই সময় রানের গতি অনেকটাই স্লথ হয় চেন্নাইয়ের।

এরপর টানা দু’বলে অশ্বিনের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন ডু-প্লেসি ও রায়না। ডু প্লেসি ফেরেন ৫৬ রানে। রায়নার সংগ্রহ মাত্র ১৭। ২৩ রানে ৩ উইকেট নিয়ে হোমকামিং ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখেন কিংস ইলেভেন অধিনায়ক। এরপর চেন্নাই ব্যাটিংয়ের হাল ধরেন ধোনি-রায়ডু জুটি। স্লগ ওভারে বিপক্ষ বোলারদের প্রতি নির্দয় হয়ে ওঠেন চেন্নাই দলনায়ক ও রায়ডু। মূলত মাহির ব্যাটিং বিক্রমেই ১৫০ পার করে চেন্নাই। ১৯ তম ওভারে স্যাম কারেনকে ১টি ওভার-বাউন্ডারি ও দু’টি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ১৭ রান সংগ্রহ করেন ধোনি।

শেষ অবধি ২৩ বলে ৩৭ রানে অপরাজিত থেকে দলের রান ১৬০-এ পৌঁছে দেন মাহি। ১৫ বলে ২১ রান করে তাঁকে যোগ্য সহায়তা করেন অম্বাতি রায়ডু। রবি অশ্বিন ছাড়াও পঞ্জাবের হয়ে কৃপণ বোলিং করেন মুরগান অশ্বিন। অধিনায়কের মতোই ৪ ওভারে মাত্র ২৩ রান খরচ করেন তিনি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও