কোঝিকোড়: শেষ ম্যাচে জয় ছাড়া অন্য কোনও সমীকরণ ছিল না ইস্টবেঙ্গলের কাছে। সেই সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে তাকিয়ে থাকতে হত চেন্নাইয়ের পয়েন্ট নষ্টের দিকে। পিছিয়ে পড়েও কোঝিকোড়ে স্নায়ুর চাপ ধরে রেখে বাজিমাৎ করল লাল-হলুদ ব্রিগেড। কিন্তু ঘরের মাঠে নাছোড় চেন্নাই পিছিয়ে পড়ে মিনার্ভাকে হারাল ৩-১ গোলে। ফল যা হওয়ার তাই হল। শেষ ম্যাচে গোকুলামকে ২-১ গোলে হারিয়েও ইস্টবেঙ্গলের অধরা রয়ে গেল আই লিগ। অন্যদিকে এক পয়েন্টে এগিয়ে থেকে প্রথমবারের জন্য আই লিগ চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সিটি এফসি।

যদিও লাল-হলুদের প্রত্যাশার পারদ চড়িয়ে চেন্নাইয়ের মাঠে এদিন খেলা শুরুর মিনিট তিনেকের মধ্যে গোল করে এগিয়ে যায় গতবারের চ্যাম্পিয়ন মিনার্ভা। কিন্তু কোঝিকোড়ে এদিন প্রথমার্ধের খেলায় আলেজান্দ্রো ব্রিগেডের ফুটবলে সে ঝাঁঝ উধাও। সেই অর্থে কোনও ইতিবাচক সুযোগও তৈরি করতে পারলেন না কোলাডোরা। দানা বাঁধল না মাঝমাঠের ফুটবল। পাশাপাশি আপফ্রন্টে বেশ ম্রিয়মান একমাত্র স্ট্রাইকার এনরিকে এসকুয়েদা। ফলে গোল হজম যেমন করতে হয়নি, তেমনই ডেডলক খুলতে না পারার কারণে গোলশূন্য অবস্থাতেই বিরতিতে লকাররুমে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধে ঝাঁঝ ফেরে লাল-হলুদের খেলায়। প্রথমার্ধের তুলনায় অনেক বেশি আক্রমণে গেলেও ভাগ্য সহায় হচ্ছিল না আলেজান্দ্রো ব্রিগেডের। ৬২ মিনিটে দুর্দান্ত আক্রমণ থেকে ডিকার বাঁ-পায়ের একটি শট পোস্টে লেগে প্রতিহত হয়। এর ঠিক মিনিট সাতেক বাদে প্রতি আক্রমণ থেকে গোল তুলে নেয় গোকুলাম। এক্ষেত্রে বক্সের মধ্যে মার্কাস জোসেফের বাঁ-পায়ের শট ডাগরকে পরাস্ত করে জড়িয়ে যায় জালে। অন্য ম্যাচে পিছিয়ে পড়েও ২-১ গোলে এগিয়ে যায় চেন্নাই।

তবে সেসবের পরোয়া করার কোনও অবকাশ ছিল না লাল-হলুদ ব্রিগেডের। তাই চ্যাম্পিয়নের লক্ষ্যেই শেষ ২০ মিনিটে খোঁচা খাওয়া বাঘের মতো জেগে উঠল তারা। নাভিশ্বাস উঠতে লাগল গোকুলাম রক্ষণে। আর চাপে পড়েই ৭৮ মিনিটে ভুল করে বসলেন গোকুলাম গোলরক্ষক। কোলাডোর সেন্টার আয়ত্তে নিতে গিয়ে আইদারাকে ফাউল করে বসেন অর্ণব দাসশর্মা। পেনাল্টি পায় ইস্টবেঙ্গল। স্পটকিক থেকে স্কোরলাইন ১-১ করে লাল-হলুদকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনেন স্প্যানিশ মিডিও কোলাডো।

ছ’মিনিট পর ম্যাচে লিড নেয় ইস্টবেঙ্গল। হেডে কোলাডোর বাড়ানো বল বক্সের মধ্যে ফের হেড করেন দানমাওয়াইয়া। কিন্তু বিপক্ষ গোলরক্ষক তা প্রতিহত করলে আলতো টোকায় জালে জড়িয়ে দেন দানমাওয়াইয়া নিজেই। সেই লিড শেষ অবধি ধরে রেখে ইস্টবেঙ্গল নিজেদের কাজ করলেও চেন্নাই ছাড়বার পাত্র নয়। ঘরের মাঠে তিন মিনিটে পিছিয়ে পড়েও শেষ অবধি ৩-১ গোলে জয় ছিনিয়ে নেয় তারা। তাই ম্যাচ জিতেও লাল-হলুদের অধরাই থেকে যায় আই লিগ ট্রফি। অন্য ম্যাচে দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করে যোগ্য দল হিসেবে আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয় চেন্নাই সিটি এফসি।