চেন্নই: ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় এক বাইশ বছরের যুবককে বেধড়ক মারল পুলিশের সাব ইনস্পেক্টর৷ ঘটনাটি ঘটেছে চেন্নই এ৷ অবৈধভাবে টাকা চায় ওই পুলিশ কর্মী৷ তারই বিরোধিতা করায় যুবককে বেধড়ক পেটানো হয়েছে বলে খবর৷

আরও পড়ুন: পুরুষদের যৌনসঙ্গমে বাধ্য করে গ্রেফতার গডম্যান

যুবকের নাম হারুন সইত৷ এক সংবাদ সংস্থাকে তিনি জানান, তাঁর বাইকটি তিনি ওই পুলিশকর্মীকে আটক করতে বলেন৷ কিন্তু তা না করে ওই সাব ইনস্পেক্টর টাকা চান৷ তা দিতে না চাইলে রেগে যান পুলিশ অপিসার৷ এরপরই হারুনকে নিগ্রহ করা শুরু করেন তিনি৷

হারুন জানান, “আমার কাছে আসল RC ছিলনা৷ আমি পুলিশকে বললাম এখন অনেকটা দেরি হয়ে গিয়েছে৷ রাত হয়ে গিয়েছে৷ তারা আমায় রসিদ দিতে পারতেন এবং আমার বাইকটা আটক করতে পারতেন৷ আমি ওদের বললাম আমি কাল সকালে আসব বাইক নিতে৷ কিন্তু পুলিশকর্মী প্রচণ্ড রেগে গেলেন৷ এরপরই আমায় নাজেহাল করা শুরু করলেন৷ উনি আমার ফোনটাও হাত থেকে ছিনিয়ে নিলেন৷ “

আরও পড়ুন: খুলিতে গেঁথে ৮ ইঞ্চির ছুরি, বাইক চালক পৌঁছলেন থানায়

হারুন জানা ওই পুলিশকর্মী তাকে বিনা করনেই এই ভাবে নাজেহাল করেছেন৷ হারুন এছাড়াও জানান, এরপর তাঁর পরিবার যখন বিচার চায় তখন পুলিশকর্মী তাদের বলেন তাঁদের বিরুদ্ধে যেন কোনও কেস ফাইল করা না হয়৷ ওই যুবক বলেন এই ঘটনাটি দ্বিতীয়বার ঘটল৷ এর আগেও একবার তিনি পুলিশের পাশবিক অত্যাচার সহ্য করেছেন৷ তবে আগের কেসটি সমঝোতার মাধ্যমেই সমাধান হয়ে গিয়েছিল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I