লন্ডন: অনন্য নজির প্রিমিয়র লিগের৷ এই প্রথমবার দু’টি ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে অল-ইংল্যান্ড লড়াই৷ লিভারপুল ও টটেনহ্যাম আগেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের খেতাবি লড়াইয়ে জায়গা করে নিয়েছে৷ এবার ইউরোপা লিগের ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করল চেলসি ও আর্সেনাল৷ এর আগে কোনও একটি দেশের চারটি দল একই মরশুমে দু’টি ইউরোপীয়ান লিগের ফাইনালে ওঠেনি৷

ইউরোপা লিগের প্রথম লেগের সেমিফাইনালে ফ্র্যাঙ্কফুর্টের সঙ্গে তাদের ঘরের মাঠে ১-১ গোলে ড্র করেছিল চেলসি৷ এবার স্ট্যামফোর্ড ব্রিজেও নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হয় ১-১ গোলের সমতায়৷ অতিরিক্ত সময় মিলিয়ে ১২০ মিনিটে সেমিফাইনালের নিস্পত্তি না হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় পেনাল্টি শুট-আউটে৷ দুই পর্ব মিলিয়ে ২-২ গোলে দাঁড়িয়ে থাকা শেষ চারের লড়াইয়ে চেলসি বাজিমাৎ করে স্পট-কিকে৷ পেনাল্টিতে ৪-৩ গোলে ফ্র্যাঙ্কফুর্টকে হারিয়ে ইউরোপা লিগের ফাইনালে জায়গা করে নেয় দ্য ব্লুজ’রা৷

আরও পড়ুন: ১১ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অল-ইংল্যান্ড ফাইনাল

অন্যদিকে শেষ চারে আর্সেনাল অবশ্য অতি সহজেও টপকে যায় ভ্যালেন্সিয়ার বাধা৷ ঘরের মাঠে স্প্যানিশ দলটিকে গানার্সরা হারিয়েছিল ৩-১ গোলে৷ এবার অ্যাওয়ে ম্যাচে ভ্যালেন্সিয়ার বিরুদ্ধে ৪-২ গোলে জয় তুলে নেয় প্রিমিয়র লিগ জায়ান্টরা৷ ফলে দুই লেগ মিলিয়ে ৭-৩ ব্যবধানে সেমিফাইনাল জিতে ফাইনালে জায়গা করে নেয় আর্সেনাল৷ খেতাবি লড়াইয়ে তারা মাঠে নামবে চেলসির বিরুদ্ধে৷

স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে চেলসির হয়ে ম্যাচের ২৮ মিনিটে একমাত্র গোলটি করেন লোফটাস-চিক৷ ৪৯ মিনিটে ফ্র্যাঙ্কফুর্টকে সমতায় ফেরান লুকা জোভিচ৷ পেনাল্টিতে চেলসি একসময় ৩-১ গোলে পিছিয়ে পড়েছিল৷ সেখান থেকে কেপার দু’টি দুর্দান্ত সেভ ম্যাচ জেতায় চেলসিকে৷ দ্য ব্লুজদের হয়ে পেনাল্টি মিস করেন সিজার৷ জয়সূচক গোলটি আসে ইডেন হ্যাজার্ডের পা থেকে, দল বদলের গুঞ্জন সত্যি হলে যিনি সম্ভবত স্প্যামফোর্ড ব্রিজে চেলসির হয়ে শেষ ম্যাচটি খেলে ফেললেন৷

আরও পড়ুন: লুকাসের হ্যাটট্রিকে প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে টটেনহ্যাম

স্পট-কিকে চেলসির হয়ে অপর তিনটি গোল করেন বার্কলি, জোরঘিনহো ও ডেভিড লুইজ৷ ফ্র্যাঙ্কফুর্টের হয়ে স্পট-কিকে তিনটি গোল করেন যথাক্রমে হালের, জোভিচ ও দুজম্যান৷ কেপার হাতে ধরা পড়ে যান হিনটারেগার ও প্যাসিয়েনসিয়া৷

এদিকে আর্সেনালের হয়ে হ্যাটট্রিক করেন পিয়ের-এমেরিক৷ তিনি ম্যাচের ১৭, ৬৯ ও ৮৮ মিনিটে গোল করেন৷ ৫০ মিনিটে গানার্সদের অপর গোলটি করেন ল্যাকাজেট৷ ১১ ও ৫৮ মিনিটো জোড়া গোল করে ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে ব্যবধান কমান গামেইরো৷