স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : উত্তর ২৪ পরগণার নিমতায় তৃণমূল নেতাকে গুলি করে খুন করা হয়। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের একটি পোষ্টার ঘিরে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। উত্তর দমদম এলাকার ঘটনা। তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

ঈদের সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা একটি পোষ্টার দেখতে পান। সেখানে এক প্রোমোটারের নাম করে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে। লাল কালি দিয়ে হাতে লেখা রয়েছে, ‘তৃণমূল করছিস – – তোর মুন্ডু কেটে ফুটবল খেলবো। আরও অনেকে আছে, জয় শ্রীরাম, বিজেপি জিন্দাবাদ।’

এই ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে। যদিও স্থানীয় বিজেপি সূত্রে দাবি, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে কেউ এই পোস্টার দিয়েছে। এর সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই। কে বা কারা এই পোষ্টার দিয়েছে তার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। পুলিশ এই পোস্টার খুলেও নিয়ে যায়৷

পড়ুন: তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ, উত্তপ্ত বর্ধমানের বাবুরবাগ

আবার নিউটাউনে ‘বিজেপি করলে মাথা কাটার হুমকি’ এমন পোস্টারেও চাঞ্চল্য ছড়ায়৷ এলাকায় বসানো হয়েছে পুলিশ পিকেট৷ এই ঘটনায় বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘হেরে গেলে মানুষের মাথার ঠিক তাকে না, তখনই পোস্টার লেখা, পোস্ট কার্ড লিখতে থাকে তারা৷’

এদিকে, গতকালই মঙ্গলবার ভর সন্ধ্যায় দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন তৃণমূল নেতা নির্মল কুণ্ডু৷ বাইকে চড়ে এসে দুষ্কৃতীরা তাঁকে গুলি করে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা৷ সিসিটিভি দেখে খুনের ঘটনার তদন্তে পুলিশ৷

লোকসভা ভোটে উত্তর ২৪ পরগনায় গেরিয়া শিবিরের উত্থান হয়েছে৷ জেলার ৫টির মধ্যে ২টি দখল করেছে বিজেপি৷ ভোট পরবর্তী সময় তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষে দফায় দফায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন এলাকা৷ ঘরছাড়াদের দেখতে নৈহাটিতেও গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বহু তৃণমূল পার্টি অফিসও বিজেপি দখল করে নেয় বলে অভিযোগ রাজ্যের শাসক দলের৷ এইরকমই একটি দলীয় দফতর উদ্ধার করেন মুখ্যমন্ত্রী৷

পরিস্থিতিতে যে স্বাভাবিক নয় তার প্রমাণ ভরসন্ধ্যায় তৃণমূল নেতাকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর ঘটনা৷ প্রত্যক্ষদর্শীদের কথা মতো, এদিন সন্ধ্যায় নিমতার ঠাকুরতলায় নিজের পাড়ার মুখে দাঁড়িয়েছিলেন দমদম উত্তর পুরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল সভাপতি নির্মল কুণ্ডু৷ সেই সময়ই খুব জোড়ে বাইক চালিয়ে দুষ্কৃতীরা এলাকা থেকে পার হচ্ছিল৷ হঠাই চলন্ত বাইক থেকে গুলি মারা হয় নির্মল কুণ্ডুকে নিশানা করে৷ তাঁর বুকে গুলি লাগে৷

গুলিবিদ্ধ নির্মল কুণ্ডুকে সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় কামারহাটির বেসরকারি হাসপাতালে৷ সেখানেই চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন৷ এই ঘটনার পর থেকেই ফের চাপা উত্তেজনা রয়েছে নিমতা এলাকায়৷ এলাকায় মোতায়েন রয়েছে প্রচুর পুলিশ৷