কলকাতা: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তীব্র আক্রমণ তৃণমূলনেত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের৷ সোমবার দিল্লির তালকাটোরা স্টেডিয়ামে পড়ুয়াদের সঙ্গে মোদীর ‘পরীক্ষা পে চর্চা’ কর্মসূচির সমালোচনায় সরব রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য৷ নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কি অধ্যাপক৷ পড়ুয়াদের লেকচার দিলেন৷ ওঁর লেকচার শুনে পড়ুয়ারা নিজেরা যা পড়েছে তাই ভুলে যাবে৷’

সোমবার দিল্লিতে পড়ুয়াদের সঙ্গে সরাসরি আলাপচারিতা সারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ পরীক্ষার টেনশন সামলানো নিয়ে পড়ুয়াদের একগুচ্ছ টিপস দেন প্রধানমন্ত্রী। মোদী ‘স্যার’-এর এই বিশেষ ক্লাসে হাজির ছিলেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের দু’হাজার পড়ুয়া। আলাপচারিতায় পড়ুয়াদের নানা বিষয়ে আশ্বস্ত করেন নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে একাধিক কঠিন পরিস্থিতির সঙ্গে তাঁকে লড়াই করতে হয় বলে পড়ুয়াদের জানান মোদী। একইসঙ্গে এই গুরুদায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে তাঁর অনেক কিছু শেখারও সুযোগ হয়েছে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পরীক্ষায় নম্বর পাওয়া প্রসঙ্গেও পড়ুয়াদের সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। পড়ুয়াদের তিনি বলেন, ‘পরীক্ষার অঙ্কে এখন আর জীবন চলে না। পরীক্ষা পাওয়া নম্বর দিয়ে সব কিছু নির্ধারিত হয় না। নম্বর ভালো না হলে জীবন শেষ হয়ে গেল এমন ভাবনা সম্পূর্ণ ভুল৷’

নরেন্দ্র মোদীর ‘পরীক্ষা পে চর্চা’ কর্মসূচিকে কটাক্ষ করে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, ‘ওনার বাণী শুনে ছাত্রছাত্রীরা যা পড়েছে তাও ভুলে যাবে৷ দশ লাখের কোট আর দেড় লাখের চশমা পরে মার্কেটিং করছেন তিনি।’ মোদীর পাশাপাশি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকেও কড়া ভাষাড় আক্রমণ করেছেন চন্দ্রিমা৷ দিলীপ ঘোষ বাংলার সংস্কৃতিকে অপমান করছেন বলে দাবি চন্দ্রিমার৷

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির প্রতিবাদে আন্দোলনের নামে যাঁরা সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করছে তাদের গুলি করে মারার নিদান দিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। দিলীপ বলেছিলেন অসম এবং উত্তর প্রদেশে এইভাবেই নাকি আন্দোলন দমন করা হয়েছে। এদিন দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য প্রসঙ্গেও কটাক্ষ করেছেন চন্দ্রিমা। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দিলীপ ঘোষ গুলি করার কথা বলেছেন। ওনার তো মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার শখ। তাহলে কাদের নিয়ে উনি রাজত্ব করবেন।’

নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির বিরুদ্ধে শুরু থেকেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছে তৃণমূল৷ অন্যদিকে সিএএ ও এনআরসির সমর্থনে প্রচার আরও তীব্র করেছে বিজেপি৷ আর এই আবহেই ক্রমেই বিজেপি-তৃণমূল সংঘাত আরও তীব্র হচ্ছে৷ চলছে কটাক্ষ পালটা কটাক্ষ৷ আসন্ন পুরভোটের আগে এই প্রবণতা আরও বাড়বে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল৷