নয়াদিল্লি: কনস্টিটিউশন হলে বিরোধী জোটের বৈঠকে যোগ দেননি কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী৷ জেডিএস নেতার অনুপস্থিতি ভাবিয়েছে বিরোধী ২২ দলের নেতাদের৷ এদিকে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, বুথফেরৎ সমীক্ষা দেখেই এই পদক্ষেপ কুমারস্বামীর৷ কিনি নাকি ক্রমশ বিজেপির দিকে ঝুঁকছেন৷ এই পরিস্থিতিতে জেডিএস নেতার নাম ভাঙাতে আসরে নামলেন টিডিপি নেতা চন্দ্রবাবু নাইডু৷

মঙ্গলবার রাতেই বিরোধী জোটের অন্যতম মুখ ও অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক করবেন কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে৷ জানা গিয়েছে এই আলোচনায় উপস্থিত থাকবেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও জেডিএস প্রধান এইচ ডি দেবগৌড়াও৷ এদিন রাতে বেঙ্গালুরুকে কুমারস্বামীর বাসভবনে হবে এই বৈঠক৷

আরও পড়ুন: অর্জুনের এনকাউন্টার হলে দায়ী থাকবেন মমতা, বিস্ফোরক বিজয়বর্গী

বহু টানাপোড়েনের পর গত বছর কংগ্রেসের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কর্ণাটকে সরকার গড়ে জেডিএস৷ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কুমারস্বামীর শপথ নেওয়ার দিনেই মহাজোটের প্রাথমিক একটা ছবি দেখেছিল দেশবাসী। মঞ্চে সেদিন সনিয়া, মমতা, রাহুল, অখিলেশ, ইয়েচুরি, মায়াবতী- কে নেই! আর বুথ ফেরত সমীক্ষা সমানে আসতেই বেঁকে বসছেন সেই কুমারস্বামী। মনে করা হচ্ছে এমনটাই৷

মঙ্গলবার দিল্লিতে যখন ২১টি দলের প্রতিনিধিরা বৈঠক করছেন, তাতে নেই কুমারস্বামী। সূত্রের খবর, কর্ণাটকে বিজেপির জয়জয়কারের সম্ভাবনার কথা প্রকাশ্যে আসার পরই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। যদিও এই বৈঠকে অনুপস্থিতি নিয়ে কোনও ব্যাখ্যা দেওয়া হয়নি কুমারস্বামীর অফিসের তরফে৷

সরকার চালাতে গিয়ে প্রতি মুহূর্তে হাত শিবিরের বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে জেডিএস নেতা তথা মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীকে৷ প্রকাশ্যে কাঁদতেও দেখা গিয়েছে তাঁকে৷ এই সবের মধ্যে কংগ্রেসের রোশন বেগ দলের বিরুদ্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করেছে বসেছেন৷ তাঁর কথায়,‘‘কেসি বেণুগোপাল একটা ভাঁড়। রাহুল গান্ধী জন্য খারাপ লাগছে। বেণুগোপালের মতো ভাঁড়, সিদ্দারামাইয়ার ঔদ্ধত্য ও গুন্ডু রাওয়ের ফ্লপ শোয়ের ফল ভোগ করতে হচ্ছে কংগ্রেসকে।’’

আরও পড়ুন: ভোট গণনার পূর্বেই EC-র কাছে ভিভিপ্যাট স্লিপ যাচাইয়ের দাবি বিরোধীদের

বেগের সংযোজন, রাজ্যে মন্ত্রক বিক্রি করা হয়েছে। এর সঙ্গে কুমারস্বামীর কোনও যোগ নেই৷ তাঁকে কাজ করতেই দেওয়া হচ্ছে না। প্রথম দিন থেকে মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য গোঁ ধরে রয়েছেন সিদ্দারামাইয়া। সরকার পতনের জন্য সিদ্দাকেই কাঠগড়ায় তোলেন এই কংগ্রেস নেতা৷

মমতা থেকে চন্দ্রবাবু, শরদ পাওয়ার থেকে মায়াবতী-অখিলেশ৷ ভোটের ফলাফলের সমীক্ষাকে কটাক্ষ করে বিরোধীদের এক জোট থাকার বার্তা দিয়েছেন৷ এই সময়ই কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে অস্বস্তিতে বিরোধী জোট৷ রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দাবি, তাই তড়িঘড়ি কুমারস্বামীর মান ভাঙাতেই দিল্লি থেকে বেঙ্গালুরুর বিমান ধরতে হচ্ছে চন্দ্রবাবুকে৷