নয়াদিল্লি: বছরের শেষ চন্দ্রগ্রহণ হতে চলেছে এমাসেই। ৩০ নভেম্বর এই চন্দ্রগ্রহণ লাগতে চলেছে। উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হল এই চন্দ্রগ্রহণ পড়েছে কার্তিক পূর্ণিমায়। আসুন জেনে নেওয়া যাক কোথায় এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে এবং ভারতে এর কতটা প্রভাব পড়ছে।

৩০ নভেম্বর দুপুর ১ টা ৪ মিনিটে শুরু হচ্ছে চন্দ্রগ্রহণ। শেষ হবে সন্ধ্যা ৫ টা ২২ এ। এই চন্দ্রগ্রহণ পূর্ণিমা তিথিতে রোহিনী নক্ষত্র এবং বৃষ রাশিতে হবে।

২০২০ সালের শেষ চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, প্রশান্ত মহাসাগর এবং আমেরিকার কিছু অংশে। তবে যেহেতু দিনের আলো থাকবে তাই এই চন্দ্রগ্রহণ ভারতে দেখা যাবে না।

ভারতের উপর এর প্রভাব – এটি উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ যা ভারতে দৃশ্যমান হবে না। শাস্ত্রমতে উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণকে গ্রহণ হিসেবে মনে করা হয় না। তাই কোনও কাজেই বিধিনিষেধ নেই। তবে নক্ষত্র এবং রাশির চিহ্নের ওপর প্রভাব পড়ে বলে জানানো হয়। এই গ্রহণটি বৃষ রাশিতে হবে, সুতরাং বৃষ রাশির জাতকদের গ্রহণের সময় কিছুটা সমস্যার মধ্য দিয়ে যেতে হতে পারে।

উপচ্ছায়া গ্রহণ কী? 

এই গ্রহণ শুরু হওয়ার আগে চাঁদ পৃথিবীর উপচ্ছায়ায় প্রবেশ করে। চাঁদ যখন পৃথিবীর প্রকৃত ছায়ায় প্রবেশ না করে বেরিয়ে আসে তখন তাকে উপচ্ছায়া গ্রহণ বলে। চাঁদ যখন পৃথিবীর প্রকৃত ছায়ায় প্রবেশ করে, তখন এটি একটি সম্পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ হিসাবে বিবেচিত হয়।

চন্দ্রগ্রহণ কখন হয়?

পৃথিবী যখন সূর্য ও চাঁদের মাঝে আসে তখন সূর্যের পুরো আলো চাঁদে পড়ে না। একে চন্দ্রগ্রহণ বলা হয়। চন্দ্রগ্রহণ ঘটে যখন সূর্য, পৃথিবী এবং চাঁদ একটি সরল রেখায় অবস্থান করে। চন্দ্রগ্রহণ সবসময় পূর্ণিমা রাতে ঘটে।

কোথায় দেখতে পারবেন এই চন্দ্রগ্রহণ?

টেলিস্কোপের সাহায্যে এই চন্দ্রগ্রহণটি খুব সুন্দর দেখাবে। আপনি এটি ভার্চুয়াল টেলিস্কোপের সাহায্যে www.virtualtelescope.eu তে দেখতে পারেন। এছাড়া ইউটিউব চ্যানেলেও সরাসরি এই গ্রহণ অনলাইনে দেখা যাবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।