স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : বৃহস্পতিবার দক্ষিণবঙ্গের পাঁচ জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সন্ধ্যায় ফের স্বস্তি দিতে পারে ঝড়ো হাওয়া এবং বৃষ্টি । বুধবারও রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় অল্পবিস্তর বৃষ্টি হয়েছে। ফলে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকবে।

মার্চ এপ্রিলের প্রথমদিকে নিয়মিত আনাগোনা ছিল ঝড়-বৃষ্টির। পরে তা উধাও হয়ে যায় । ফনীর পর অবস্থা অসহনীয় হয়ে ওঠে। দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় লু বয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে সূর্যের প্রখর তাপে অতিষ্ঠ হয়ে যায় আমজনতা। গত কয়েকদিনের বৃষ্টি সেই দহনজ্বালাকে দূরে সরিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, বীরভূম, উত্তর ২৪ পরগণা, দক্ষিণ ২৪ পরগণায়। উত্তর ২৪ পরগণা থেকে মেঘ কলকাতার দিকে এলে শহরে খানিক স্বস্তি মিলতে পারে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দক্ষিণবঙ্গের আসানসোলের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বাঁকুড়ার ৩৮.১, বর্ধমান ৩৭.০, হলদিয়া ৩৪.৩ দিঘায় ৩৫.১, মেদিনীপুর ৩৬.৫, পানাগড় ৩৭.২, পুরুলিয়া ৩৮.৭, উলুবেড়িয়া ৩৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কয়েকটি অঞ্চলে বৃষ্টিও হয়েছে। বাঁকুড়ার ১.৬ বর্ধমান ৪.২ কাঁথি ১.৬ দিঘা ২.৫ মেদিনীপুর ০.৬ পুরুলিয়া ১২.০ শ্রীনিকেতন ৬.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

গত ক’দিন ধরেই রাজ্যের বায়ুর পরিমণ্ডলে জলীয় বাষ্প পর্যাপ্ত তৈরি হয়, যা ফণী নিয়ে গিয়েছিল তা ফের হাজির হয়। সেটিকে ঠেলে তুলে দেয় বিহারের ঘূর্ণাবর্ত, সঙ্গ দিয়েছে উত্তর-দক্ষিণে বরাবর বিস্তৃত লম্বা নিম্নচাপ অক্ষরেখাও। ফল, বজ্রগর্ভ মেঘ সৃষ্টি এবং বৃষ্টি। তবে বুধবারেই সেগুলি অনেকটা হালকা হয়ে গিয়েছে তাই আজ থেকে বৃষ্টি কমবে। নতুন কোনও পরিস্থিতি তৈরি হলে তখন বৃষ্টির সম্ভাবনা বাড়বে।