স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা: বৃহস্পতিবার রাত ১০টা অবধি শেষ প্রচার করতে পারবে রাজনৈতিকদলগুলি। তেমনই নির্দেশ দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। ফলে বৃহস্পতিবারই রাজ্যের শেষ দফা নির্বাচনের আগে প্রচারের শেষ দিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। শেষ বেলায় তাই প্রচার সারতে রাস্তায় নামবে সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলি।

রাজনৈতিক দলের লোকসভা ভোটের প্রচার পর্ব রয়েছে দিনভর। তাই বুধবারের মতো এদিনও যানজটের প্রবল সম্ভাবনা থাকছে কলকাতায়। এমনটাই জানিয়েছে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ। প্রথম মিছিল রয়েছে বিকেল তিনটের সময়। জোকা ক্রসিং থেকে ডায়মন্ড হারবার রোড ,ঠাকুরবাজার ক্রসিং, সখেরবাজার, বেহালা চৌরাস্তা ক্রসিং , ১৪ নম্বর বাস স্ট্যান্ড , পাঠকপাড়া ক্রসিং হয়ে তারাতলা ক্রসিং পর্যন্ত এই মিছিল যাবে। কালাকার স্ট্রিট এবং কটন স্ট্রিটে বিকেল তিনটের সময়েই রাজনৈতিক মিটিং রয়েছে। ওই সময়ে কালাকার স্ট্রিটে মিটিং হওয়ার অর্থ হাওড়ামুখী সমস্ত বাস ,গাড়ি যানজটের মুখে পড়বে। প্রভাব পড়বে সন্ধ্যায় উত্তর কলকাতার রাস্তায়।

ফলে অফিস ফেরতা মানুষের ভোগান্তির প্রবল সম্ভাবনা থাকছে। বিকেল চারটের সময় মিছিল বেরোবে মৌলালির কাছে এজেসি বোস রোডের আর.আহমেদ ডেন্টাল কলেজ চত্বর থেকে। মিছিল যাবে খান্না ক্রসিং পর্যন্ত। মাঝে পেরোবে এজেসি বোস রোড শিয়ালদহ ফ্লাইওভার এবং আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রোড। বিকেল পাঁচটায় পদযাত্রা রয়েছে যাদবপুর সুকান্ত সেতু থেকে খিদিরপুর মোড় পর্যন্ত।

লম্বা পথের এই মিছিল যাবে আরএসসি মল্লিক রোড, গরিয়াহাট রোড(দক্ষিণ), গরিয়াহাট মোড়, গরিয়াহাট রোড, বালিগঞ্জ ফাঁড়ি, হাজরা, ল্যান্সডাউন, পদ্মপুকুর, যদুবাবুর বাজার, হরিশ মুখার্জি রোড, কালীঘাট ব্রিজ, গোপালনগর, জাজেস কোর্ট রোড, মোমিনপুর ক্রসিং, একবালপুর রোড, ডায়মন্ড হারবার রোড দিয়ে। বিকেল সাড়ে পাঁচটায় শ্রদ্ধানন্দ পার্ক থেকে ডোরিনা ক্রসিং পর্যন্ত মিছিল রয়েছে, যা যাবে আর্মহার্স্ট স্ট্রিট, ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, বিবি গাঙ্গুলি স্ট্রিট, বৌ বাজার, এনসি স্ট্রিট, যদুনাথ দে রোড, চিত্তরঞ্জন এভিন্যু, গণেশচন্দ্র এভিন্যু, এনসি স্ট্রিট, রানিরাসমণি স্কোয়ার, লেনিন সরণি, মৌলালি ক্রসিং, এসএন ব্যনার্জি রোড হয়ে। মিছিল শেষ হবে ডোরিনা ক্রসিংয়ে।

সিআইডি রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। রাতারাতি বাংলা থেকে সরিয়ে দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে যেতে বলা হয়েছে সারদা-কাণ্ডে নাম উঠে আসা এই পুলিশ অফিসারের। আগামীকাল বৃহস্পতিবার তাঁকে সকাল ১০টার মধ্যে মন্ত্রকে গিয়ে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্রসচিব অত্রি ভট্টাচার্যকেও সরানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশনের তরফে। বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্রসচিবের কাজ দেখবেন মুখ্যসচিব মলয় দে। এর মাঝেই আজ রাত ১০টা অবধি শেষ প্রচার করতে পারবে রাজনৈতিকদলগুলি জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। প্রচারের নির্ঘণ্ট কমেছে ২৪ ঘণ্টা।