ম্যাঞ্চেস্টার: প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে বার্নার্দো সিলভা ও সুপার সাব লেরয় সেনের গোলে ম্যাঞ্চেস্টার ডার্বি জিতে নিল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এদিন ম্যাচ জয়ের ফলে লিভারপুলকে ১ পয়েন্ট পিছনে ফেলে ফের প্রিমিয়র লিগ টেবিলের শীর্ষে চলে এল পেপ গুয়ার্দিয়োলার ছেলেরা। যার অর্থ শেষ তিন ম্যাচ জিতলেই টানা দ্বিতীয়বারের জন্য প্রিমিয়র লিগ শিরোপা উঠবে স্কাই ব্লুজ ব্রিগেডের মাথায়।

এভার্টনের কাছে ০-৪ গোলে বিধ্বস্ত হওয়া একাদশে এদিন পাঁচ-পাঁচটি পরিবর্তন এনে ডার্বিতে অভিযান শুরু করেন সোল্কজায়ের। ম্যান ইউ ফুটবলারদের বাড়তি উদ্যম প্রথমার্ধে বেশ কিছু গোলের সুযোগও এনে দেয়। কিন্তু ফিনিশিংয়ে দক্ষতার অভাব, সর্বোপরি বিপক্ষ গোলরক্ষকের তৎপরতায় গোলের দেখা পায়নি রেড ডেভিলসরা।

বিরতির কিছুটা আগে থেকেই ম্যাচে নিয়ন্ত্রণ দখল করে ম্যান সিটি। প্রথমার্ধে সিলভার বাঁ-পায়ের ভলি কিংবা গোলের খুব কাছ থেকে স্টার্লিংয়ের সহজতম সুযোগ দি গিয়ার দস্তানায় প্রতিহত হয়। সবমিলিয়ে প্রথমার্ধের শেষে স্কোরশিটে নাম তুলতে ব্যর্থ হয় দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী।

৫৪ মিনিটে গুন্দোয়ানের বল ধরে বক্সের মধ্যে বার্নার্দো সিলভার বাঁ-পায়ের শট ম্যান ইউয়ের স্প্যানিশ গোলরক্ষককে পরাস্ত করে ঢুকে যায় গোলে। গোল পেয়ে ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে সার্জিও আগুয়েরোর দূরপাল্লার শট এরপর পোস্টে লেগে বাইরে চলে যায়। যদিও দ্বিতীয় গোল পেতে বেশি সময় নেয়নি ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। ৬৬ মিনিটে রহিম স্টার্লিংয়ের বাড়ানো বল ধরে বাঁ-পায়ের জোরালো শটে দি গিয়াকে পরাস্ত করে স্কোরলাইন ২-০ করেন সুপার সাব লেরয় সেন।

বাকি সময়টা স্কোরলাইন অপরিবর্তিত না হওয়ায় দু’গোলে জিতেই মাঠ ছাড়ে গুয়ার্দিয়োলার ছেলেরা। একইসঙ্গে ১ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে লিগ টেবিলে ফের শীর্ষস্থান দখল করে নেয় তারা। ৩৫ ম্যাচ থেকে সিটির সংগ্রহ ৮৯ পয়েন্ট। অন্যদিকে খারাপ সময় অব্যাহত ম্যান ইউয়ের। এভার্টনের পর ডার্বি হেরে লিগে প্রথম চারে শেষ করার বিষয়টি বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের মুখে। ৩৫ ম্যাচে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে ছ’নম্বরে তারা। ৩৫ ম্যাচ থেকে ৬৭ পয়েন্ট নিয়ে চারে চেলসি।