ফাইল ছবি৷

নয়াদিল্লি: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ দেশের একাধিক প্রকল্প। সেক্ষেত্রে দেশ যখন চূড়ান্ত বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তখন প্রধানমন্ত্রীর জন্য এতো অর্থব্যয় করে বাড়ি তৈরি নিয়ে প্রশ্ন তুললেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী (Priyanka Gandhi)। তিনি এদিন ট্যুইট করে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন। বললেন এই অর্থ করোনা মোকাবিলায় ব্যবহার করলে ভালো হত। শুধু তিনি নন এই বিপর্যয়ের সময়ে ১৩০০০ কোটি টাকা দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন তৈরির কোনো প্রাসঙ্গিকতা আছে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন অন্যান্য বিরোধী নেতৃত্বরা।

এদিন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ট্যুইটে লেখেন, ‘দেশের মানুষ যখন অক্সিজেন, ভ্যাকসিন, হাসপাতালের বেড, ওষুধের ঘাটতি নিয়ে লড়াই করে চলেছে। তখন ১৩০০ কোটি টাকায় প্রধানমন্ত্রীর নতুন বাড়ি তৈরির পরিবর্তে জনগণের জীবন বাঁচাতে কাজে লাগালে ভাল হয়। সরকারের উচিত স্বাস্থ্য পরিকাঠামো তৈরিতে অর্থ ব্যয় করা। এই ব্যয় দেখেই সাধারণ মানুষ বুঝতে পারছে সরকার কোন পথে পরিচালিত হচ্ছে।’ মহামারীর সময়ও ভিস্তা (Vista Project) প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রীর জন্য নতুন ভবন তৈরির কাজ জারি রাখা হয়েছে।

২০২২ সালে স্বাধীনতার ৭৫ বছরে পূর্তির দিন নতুন সংসদ ভবনটির উদ্বোধন করতে চান মোদী। ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের দিন তিনি বলেছিলেন, ”আজ একটা ঐতিহাসিক দিন। আজ এমনটা একটা দিন যেন ভারতেরই ভিত্তি প্রস্তর স্থাপিত হল। বর্তমানের সংসদ ভবন যদি ১৯৪৭ সাল থেকে স্বাধীন ভারতকে দিশা দেখিয়ে থাকে, তাহলে সংসদের নতুন ভবন একটি নতুন ও আত্মনির্ভর ভারতের একটা সাক্ষ্য হয়ে উঠবে।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.