কলকাতা:  কেন্দ্রের রোষের মুখে রাজ্যের পাঁচ আইপিএস। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে ধর্নামঞ্চে থাকার জের। রাজ্যের এই পাঁচ আইপিএসের বিরুদ্ধে বড়সড় ব্যবস্থা নিতে চলেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। কেড়ে নেওয়া হতে পারে পাঁচ আইপিএসের মেডেল। এই পাঁচ আইপিএস হলেন, রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার জ্ঞানবন্ত সিংহ, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সুপ্রতিম সরকার, এডিজি আইনশৃঙ্খলা অনুজ শর্মা এবং আইপিএস বিনীত গোয়েল।

সূত্রের দাবি, সার্ভিস রুল ভাঙার অভিযোগে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে এই পাঁচ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে। একই সঙ্গে ৫ আইপিএসকে দেওয়া পদকও কেড়ে নিতে পারে কেন্দ্র।

শুধু তাই নয়, সূত্রে জানা গিয়েছে, আইনি পদক্ষেপের পাশাপাশি অভিযুক্ত অফিসারেদের বিরুদ্ধে পদোন্নতি পর্যন্ত আটকানো হতে পারে বলে খবর। এমনকি, সেন্ট্রাল ডেপুটেশন থেকে নাম বাদ যেতে পারে এই ৫ অফিসারের। এমনটাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে এই নির্দেশিকা রাজ্যের কাছে পৌঁছে গিয়েছে বলে সূত্রে জানা গিয়েছে। এই মুহূর্তে এই পাঁচ আইপিএস যেহেতু পশ্চিমবঙ্গ ক্যাডারে কাজ করছে সেজন্যে রাজ্যই এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই ধর্না মঞ্চে রাজ্যের এই পাঁচ আইপিএসকে দেখা যায়। সেই সময় থেকেই গুঞ্জন উঠতে শুরু করে যে কীভাবে আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে কোনও রাজনৈতিক দলের ধর্নায় বসতে পারেন আইপিএসরা? এরপর থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। অবশেষে রাজ্যের এই উচ্চপদস্থ পাঁচ আইপিএসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিল কেন্দ্রীয় সরকার।

রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র ১৯৮৫ ব্যাচেরর আইপিএস অফিসার, বিনীত গোয়েল ১৯৯৪ ব্যাচের আইপিএস, অনুজ শর্মা ১৯৯১ ব্যাচের আইপিএস, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার জ্ঞানবন্ত সিংহ ১৯৯৩ সালের আইপিএস অফিসার এবং সুপ্রতিম সরকার ১৯৯৭ সালের আইপিএস অফিসার।