নয়াদিল্লি : বৃহস্পতিবার দিল্লি সরকারের প্রস্তাব খারিজ করল কেন্দ্র৷ দিল্লির মেট্রো পরিষেবা বিনামূল্যে মহিলাদের জন্য খুলে দেওয়া হোক৷ এমনই প্রস্তাব রেখেছিল দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওয়াল সরকার৷ কিন্তু সেই প্রস্তাবে সায় নেই কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের৷

আম আদমি পার্টি সরকারকে কেন্দ্র জানিয়ে দিয়েছে মহিলাদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার জন্য বিকল্প পথ বাছুক তারা৷ মেট্রোর ভাড়া না নিয়ে সেই সুরক্ষা নিশ্চিত করা যাবে না বলেই মত কেন্দ্র সরকারের৷ মহিলাদের জন্য যাতায়াত ব্যবস্থা আরও নিরাপদ করতে দিল্লি সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে৷ এজন্য বিকল্প কোনও ব্যবস্থা, যেমন আরও বেশি বাস ও অন্যান্য যান বাহনের ব্যবস্থা করার মত পথ ভাবা দরকার বলে জানিয়েছে কেন্দ্র৷

জুন মাসের শুরুতেই দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার জানিয়েছিল, মহিলাদের যাতায়াতের কথা মাথায় রেখে দিল্লির বাস ও মেট্রোতে বিনামূল্যে পরিষেবা দেওয়া হবে৷ এমনিতেই মেট্রোর ভাড়া দিল্লিতে বেশ চড়া৷ সেই সূত্র ধরেই কেজরিওয়াল জানিয়ে ছিলেন, নিরাপদ দিল্লি গড়ে তোলার জন্য এই পদক্ষেপ জরুরি৷ তাই ডিটিসির বাস ও মেট্রোতে কোনও মহিলাকে ভাড়া দিতে হবে না৷

আরও পড়ুন : লন্ডনে বোমাতঙ্কে জরুরী অবতরণ ভারতীয় বিমানের

এক সাংবাদিক বৈঠকে কেজরিওয়াল বলেন মেট্রো বা বাসে নিরাপদ মহিলারা৷ ফলে এই সুবিধা তাঁদের দেওয়া উচিত৷ মহিলাদের মধ্যে খুব কম সংখ্যকই মেট্রোর ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করতে পারেন৷ বেশিরভাগই তা পারেন না৷ তাই সরকারের পক্ষ থেকে ভর্তুকি দেওয়া হবে৷ যারা টিকিট কিনতে পারবেন, তাঁরা কিনবেন৷ যারা পারবেন না, তাদের পাশে সরকার রয়েছে৷

উল্লেখ্য দিল্লিতে মহিলা যাত্রীর সংখ্যা বেশ কয়েক লক্ষ। তাঁদের বেশিরভাগই যাতায়াত করেন মেট্রোতে৷ এঁদের প্রত্যেকের ভাড়া মকুব করে দিলে, কতটা ক্ষতি হবে সরকারি রাজস্বের, তা সহজেই অনুমেয়৷ হিসেব বলছে প্রায় ৭০০ কোটির ধাক্কা সামলাতে হতে পারে কেজরিওয়াল সরকারকে৷

তাই এই ইস্যুতে প্রথম থেকেই মত দেয়নি কেন্দ্র৷ সংঘাত শুরু হয়েছিল৷ কারণ দিল্লি মেট্রো কেন্দ্র রাজ্য যৌথ উদ্যোগের ফসল৷ তবে ভর্তুকির পরিমাণ আধাআধি হওয়া বাঞ্ছনীয়, কিন্তু এই প্রস্তাবেও কেন্দ্র সাড়া দেয়নি বলে অভিযোগ করেছিলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷

আরও পড়ুন : নীরব মোদীর ২৮৩ কোটির সুইস ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ

দিল্লি সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়৷ আদৌ মেট্রোর ভাড়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত একক ভাবে কী দিল্লি সরকার নিতে পারে? কারণ মেট্রো রেল কর্পোরেশন যৌথ উদ্যোগ৷ তাই বিষয়টি বেআইনী বলেই জানাচ্ছিল ওয়াকিবহাল মহল৷ এই নিয়ম চালু হলে দিল্লি মেট্রোর আর্থিক ক্ষতির কথাও উল্লেখ করেছিলেন অনেকে৷

সবদিক বিবেচনা করেই দিল্লি সরকারের এই প্রস্তাব নাকচ করেছে কেন্দ্র৷ জানিয়ে দিয়েছে এই ধরণের সুবিধা দেওয়া সম্ভব নয়৷ তবে দিল্লি সরকারের বিরোধীদের দাবি ছিল মহিলাদের সুবিধা নয়, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে নিজের দলের ভোট টানতেই ভোটার মন জয় করার কাজ শুরু করতে চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷