নয়াদিল্লি: করোনা মোকাবিলায় রবিবারই দেশজুড়ে চতুর্থ দফার লকডাউন ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ৩১ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানো হয়েছে। চতুর্থ দফার লকডাউনে কন্টেনমেন্ট জোন ভাগ করার দায়িত্ব রাজ্য সরকারগুলির উপরই ছেড়ে দিয়েছে কেন্দ্র।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে হওয়া বৈঠকে রাজ্যগুলির উপরই কন্টেনমেন্ট জোন ভাগ করার দায়িত্ব দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও এই একই দাবিতে সরব হয় আরও বেশ কয়েকটি রাজ্য। শেষমেশ রাজ্যগুলির উপরই কন্টেনমেন্ট জোন ভাগ করার সিদ্ধান্ত ছাড়ে কেন্দ্রীয় সরকার।

কেন্দ্রের তরফে রবিবার চতুর্থ দফার লকডাউন সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। ওই নির্দেশিকা অনুযায়ী করোনা মোকাবিলায় কন্টেনমেন্ট জোন ঠিক করবে রাজ্য সরকার ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি। রেড, গ্রিন, অরেঞ্জ জোন কোথায় হবে, তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ দফতর।

রাজ্যের কোন এলাকায় রেড, অরেঞ্জ, কন্টেনমেন্ট জোন হবে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে বলে জানানো হয়েছে নির্দেশিকায়। করোনা মোকাবিলায় লকডাউন পরিস্থিতি নিয়ে দিন কয়েক আগেই মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সেই বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কন্টেনমেন্ট জোন তৈরির ভার রাজ্যগুলির হাতে ছেড়ে দেওয়া উচিত বলে দাবি জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই দাবিতে সমর্থন জানান একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।

শেষমেশ কেন্দ্রীয় সরকারও করোনা রুখতে কন্টেনমেন্ট জোন গড়তে রাজ্যগুলির ভূমিকা থাকা দরকার বলে মনে করেছে। সেই মতো রাজ্য সরকারগুলির উপরেই কন্টেনমেন্ট জোন অর্থাৎ রেড, অরেঞ্জ ও গ্রিন জোন তৈরির ভার দিয়েছে কেন্দ্র।

চতুর্থ দফায় ৩১ মে পর্যন্ত লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে দেশজুড়ে। কেন্দ্রের নির্দেশিকা অনুযায়ী চতুর্থ দফার লকডাউনে আন্তঃরাজ্য ও রাজ্যের মধ্যে বাস এবং যাত্রিবাহী পরিবহণে ছাড় দেওয়া হলেও বন্ধ থাকবে বিমান বা মেট্রো পরিষেবা।

আন্তঃরাজ্য এবং রাজ্যের মধ্যে যাত্রিবাহী বাস এবং অন্যান্য যানবাহন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাচল করতে পারবে। চতুর্থ দফার লকডাউনে সন্ধে ৭টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত রাস্তায় মানুষের চলাচল সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রাতের কারফিউ কঠোরভাবে বলবৎ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকার ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।