নয়াদিল্লি:  ৫ শতাংশ ডিএ বাড়ানো হচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের। গত বুধবার সেকথা ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর।

এই ভাতা বাড়নোকে মোদী সরকারের তরফে দিওয়ালির উপহার বলে উল্লেখ করেছেন মন্ত্রী। জানা যাচ্ছে, আগামী মাস থেকেই বর্ধিত হারে বেতন পাবেন কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরা। শুধু তাই নয়, যেহেতু জুলাই থেকে নয়া সিদ্ধান্ত কার্যকর হচ্ছে সেহেতু এরিয়ার হিসাবে বকেয়া টাকা কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের মিটিয়ে দেওয়া হবে বলে জাতীয় এক সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে। প্রকাশিত খবর মোতাবেক, ৫% বৃদ্ধির ফলে মহার্ঘ ভাতা ১২% থেকে বেড়ে ১৭% হবে। এর ফলে কেন্দ্রীয় সরকারের মোট ₹১৫,৯০৯.৩৫ কোটি খরচ হবে।

কেন্দ্রীয় সরকারের এই ঘোষণায় অন্তত ৫০ লক্ষ সরকারি কর্মচারী এর ফলে উপকৃত হবেন বলে জানা গিয়েছে।

কেন্দ্রীয়মন্ত্রী জাভেড়কর জানিয়েছেন, ‘সরকারের এই পদক্ষেপে খুশি হবেন কর্মীরা। বিভিন্ন সেক্টরের জন্য এই পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।’ শুধু কর্মরতরাই নন, এর ফলে লাভবান হবেন অন্তত ৬২ লক্ষ পেনশনভোগীও।

শুধু তাই নয়, মহার্ঘ ভাতা নিয়ে কোনও কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ঘোষণা করা এটিই সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত, এমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় জাওড়েকর। পাশাপাশি সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনেই যে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী। দ্বিতীয় মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর যে বাজেট ঘোষণা হয়, তার পরে কিছুটা আশাহত হয়েছিলেন সরকারি কর্মীরা। এদিনের সিদ্ধান্ত তাঁদের মুখে কিছুটা আশি ফোটাবে বলেই আশা করা হচ্ছে।

বাজেটের আগে সরকারি কর্মীরা আশা করছিলেন যে, ন্যুনতম বেতন বৃদ্ধি করা হবে। এটা চিল তাদের দীর্ঘদিনের দাবি। কিন্তু কেন্দ্রীয় বাজেটে সেই আশা পূরণ হয়নি।

এবার কিছুটা আশা জাগিয়ে ডিএ ঘোষণা করল মোদী সরকার। ২০১৯-এর অক্টোবর থেকে এই ডিএ-র জেরে বেতন কিছুটা বৃদ্ধি পাবে। ২০১৬-র থেকে একসঙ্গে এত ডিএ বৃদ্ধি এই প্রথম। সাধারণত মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ডিএ বাড়ানো হয়। বেসিকের উপর ভিত্তি করে এই ভাতা দেওয়া হয়। ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ- বিশ্বে এই তিনটি দেশে এই ধরনের ভাতা দেওয়া হয়।